Category: বিভাগীয় সংবাদ

হাজারীবাগে মাদ্রাসা প্রধানের অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারীতা: মহিলা অভিভাবকদের স্বাক্ষর কর্মসূচীর আয়োজন

 

তারিখ: ২৯ মার্চ, ২০১৭ খ্রি. হাজারীবাগ (ঢাকা) প্রতিনিধি: গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১ টায় ঢাকাস্থ হাজারীবাগ দারুল কুরআন মডেল মাদ্রাসার অভিভাবকরা মাদ্রাসা প্রধানের অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারীতার বিরুদ্ধে অনানুষ্ঠানিকভাবে এক স্বাক্ষর কর্মসূচীর আয়োজন করেন। একই সাথে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে অভিভাবকদের পক্ষ থেকে সুনির্দিষ্ট কিছু প্রস্তাবনা লিখিত আকারে পেশ করা হয়। মাদ্রাসার চেয়ারম্যান বরাবর উত্থাপিত সেই আবেদন-এ উল্লেখ করা হয়েছে, ‘মাদ্রাসার প্রিন্সিপ্যাল মাওলানা কাজী জালাল উদ্দীন ও খন্ডকালীন সহকারী শিক্ষক বিপ্লব হোসাইন এর বিতর্কীত কর্মকান্ডে তারা উদি¦গ্ন। সহকারী শিক্ষক ‘বিপ্লব হোসাইন’ শিক্ষার্থীদের সাথে শিক্ষকসুলভ আচরণ না করে অতিমাত্রায় বন্ধুভাবাপন্ন, অপেক্ষাকৃত বেশি বয়সি মেয়েদের সাথে তিনি সখ্যতা তৈরীতে অধিক আগ্রহী। শিক্ষার্থীরা অধিকাংশ সময়ে এধরণের শিক্ষকদের কাছে অসহায় হয়ে পড়ছে।’ আবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, ‘প্রতিষ্ঠান প্রধান প্রায় সময় অনুপস্থিত থাকেন। আবার যে দিন আসেন সেই দিন ১/২ ঘন্টা অবস্থান করেই চলে যান। নিজের সামাজিক মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করতেই প্রিন্সিপ্যাল সাহেব মাদ্রাসার পরিচয় ব্যবহার করছেন।’ তাদের অভিযোগগুলোতে তুলে ধরা হয়েছে,  ‘শিক্ষক নিয়োগে স্বেচ্ছাচারীতা, পাঠদানে অযোগ্য শিক্ষকদের নিয়োগ প্রদান, শিক্ষদের সাথে সংঘাতপূর্ণ আচরণ, শিক্ষকদের মধ্যে পারস্পরিক আচরণের ব্যতয় ঘটলেও তাদের মধ্যে সুষ্ঠু সমাধানের বিপরীতে উস্কানীমূলক বক্তব্য দেয়া,  সিনিয়র ও দক্ষ শিক্ষকদের চেয়ে জুনিয়র শিক্ষকদের অধিক বেতন নির্ধারণ, কতিপয় শিক্ষকদের বই বিক্রি বাণিজ্য, কোচিং এর সময় বন্টন নিয়ে শিক্ষকদের মাঝে উত্তেজনার পরিবেশ সৃষ্টি হওয়া নি:সন্দেহে ন্যাক্কারজনক। একই সাথে তারা অভিযোগ করে বলেন, শিক্ষক বিপ্লবকে অপসারণ করা শিক্ষার্থী ও প্রতিষ্ঠানের জন্য কল্যাণকর। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন শিক্ষক বলেন, অভিভাবকদের এই অভিযোগগুলো আমলে না নেয়া হলে যে কোনো মুহূর্তে প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অপ্রীতিকর কোনো পরিস্থিতি তৈরী হওয়ার আশঙ্কাকে উড়িয়ে দেয়া যায় না। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত প্রতিষ্ঠান প্রধানের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায় নি।

উলিপুরে ইজিপিপি প্রকল্পের শ্রমিক দিয়ে টাকার বিনিময়ে বাড়ি ভরাট


উলিপুর (কুড়িগ্রাম) সংবাদদাতা॥
উলিপুরের হাতিয়া ইউনিয়নে ইজিপিপি প্রকল্পের শ্রমিক দিয়ে টাকার বিনিময়ে বাড়ি ভরাটের কাজ চলছে। পাশেই সরকারি রাস্তা খানা খন্দে ভরা চলাচল করতে পারছে না মানুষ। অথচ সেখানেই অতি-দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি’র শ্রমিক দিয়ে ভরাট করা হচ্ছে বাড়ি ভিটা । ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা জনস্বার্থে কাজ না করে ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা নিয়ে এসব বাড়ি ভরাট করে দিচ্ছেন। এদিকে, মন্ত্রণালয়ের জারি করা পরিপত্রে উপকারভোগি পরিবর্তনের সুনির্দিষ্ট নীতিমালা থাকলেও এ ইউনিয়নে তা একেবারেই মানা হয়নি। কর্মসুচির শ্রমিক দিয়ে জনস্বার্থে রাস্তার পরিবর্তে বাড়ি ভরাটের ঘটনায় এলাকার মানুষজনের মাঝে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে, জেলার উলিপুর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের কলাতিপাড়া গ্রামে।
জানা গেছে, উপজেলার ঐ ইউনিয়নের মেম্বার মোজাফ্ফর হোসেনের নির্দেশ মত গত শনিবার অতিদরিদ্রদের জন্য কর্ম সংস্থান কর্মসূচির শ্রমিকরা কাচুয়া নামের একজনের বাড়ি ভিটায় মাটি ভরাট করছে। পাশেই চলাচল অযোগ্য কর্দোমাক্ত রাস্তায় মাটি না কেটে অন্যের বাড়িতে মাটি কাটার ঘটনাটি এলাকার মানুষ সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে জানালেও তারা থাকে নির্বিকার। পরে বিষয়টি সংবাদ কর্মীদের মধ্যে জানাজানি হলে সরেজমিন কলাতিপাড়া গ্রামে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পান। সেখানে মাটি কাটার সাথে জড়িত জাবেদ আলী নামের একজন শ্রমিককে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, ‘মেম্বর হামাক যার বাড়িত মাটি কাটপ্যার কয় হামরা তার বাড়িত মাটি কাটি দেই’। এসময় ২০ জন শ্রমিকের একটি দল ৫ দিন ধরে পাশাপাশি ৪টি বাড়িতে মাটি ভরাটের কাজ করছিল বলে শ্রমিকরা জানান। তারা বলেন, সত্য কথা কইলে মেম্বর হামার নাম কাটি দিবে বাহে, তোমরা কোন্টে থাকি ভেজাল কৈরব্যার আইলেন’। এমন আতংকের মধ্যে মেহের আলী, ভুরিয়া ও স্বাধীনসহ দলের অধিকাংশ শ্রমিক বলেন, হামরা ঐ এলাকার পুরাতন মেম্বর ওসমান উদ্দিন, আব্দুল লতিফ ও মতিয়ারের বাড়ি ভরাট করার পর আজ শনিবার কাচুয়ার বাড়ি ভরাট করবার নাগছি। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী এসব শ্রমিকের জনস্বার্থে রাস্তা-ঘাট, মসজিদ, মক্তবসহ বিভিন্ন স্থাপনায় মাটি ভরাটের কথা। কিন্তু এ ইউনিয়নে তা একবারেই মানা হচ্ছে না। গুঞ্জন রয়েছে, উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সাথে ঐ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বি এম আবুল হোসেনের দহরম-মহরম ও নিবিড় সম্পর্ক থাকায় সে কোন কিছুই তোয়াক্কা করেন না। পরিপত্রে সুস্পষ্ট বলা আছে, পূর্ববর্তি বছরের উপকারভোগি পরবর্তি বছরে পরিবর্তন করা যাবে না। তবে কোন উপকার উপকারভোগির মৃত্যু হলে অথবা কাজ করতে অক্ষম হলে সেক্ষেত্রে তার পরিবারের সদস্যকে (উপকারভোগি নির্বাচনের যোগ্য) তার স্থলে অন্তর্ভূক্ত করা যাবে। পরিবারের সদস্য বলতে স্ত্রী, স্বামী, পূত্র, কন্যা, পিতা এবং মাতাকে বুঝায়। কিন্তু ইউনিয়নটির ৫ নং ওয়ার্ডে মন্ত্রণালয়ের পরিপত্রের তোয়াক্কা না করে পূর্ববতি বছরের মাত্র ১৩ জন শ্রমিকে রেখে ৫২ জন শ্রমিককে নতুন করে তালিকাভূক্ত করা হয়েছে। বাদ পড়া শ্রমিকরা সংশ্লিষ্ট অফিসে লিখিত অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাননি। অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় মেম্বার ৪ থেকে ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে নতুন শ্রমিক তালিকা ভূক্ত করেন। তালিকা পরিবর্তনে দুর্নীতির বিষয়টি ইতিপূর্বে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হলেও কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেনি কর্তৃপক্ষ।
ঐ গ্রামের মোজাম্মেল নামের একজন বলেন, ‘বাহে হামার এই রাস্তাটাত হাটায় যায় না, মেম্বারক কইতে কইতে হাবসি গেছি, তাও মাটি কাটে না। এমরা টাকা দিছে তো ,ওমার বাড়ি বাড়ি মাটি কাটি দিবার নাগছে’। এমন অবস্থা ইউনিয়নের সব ক’টি ওয়ার্ডে।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা খন্দকার মোঃ ফিজানুর রহমান বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সহায়ক ও গ্রীন লীফ একাডেমি’র যৌথ আয়োজনে নিগুয়ারীতে স্বাধীনাতা দিবস পালিত

মোঃ আল আমিন
ভালুকা(ময়মনসিংহ)ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানাদীন এলাকা নিগুয়ারীতে  সহায়ক ও গ্রীন লীফ একাডেমি’র যৌথ আয়োজনে ২৬শে মার্চ মহান স্বাধীনাতা দিবস পালিত হয় ও মহান স্বাধীনতা দিবসকে কেন্দ্র করে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে  মহান স্বাধীনতা বিষয়ে বক্তব্য করেন কে,বি,এম জিল্লুর রহমান(কামরুল) অনুষ্ঠানের সভাপতি ও প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক গ্রীন লীফ একাডেমি,প্রধান অথিতি হিসাবে বক্তৃতা করেন মোঃ চাঁন মিয়া ওসি পাগলা থানা ও সহায়কের উপদেষ্টা, এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক মোঃ লুৎফর রহমান(রানা) ও সহায়ক প্রতিষ্ঠাতা,সাংবাদিক মোঃ আশিক সহায়ক সদস্য, মোঃ আল আমিন সাংবাদিক দৈনিক অন্যদিগন্ত ও সহায়ক সভাপতি ভালুকা উপজেলা, এবং নিগুয়ারী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহবায়ক  রাজিব চন্দ্র মহানায়ক, আনোয়ার শামিম,সুমন মিয়া,সুহরাব সহ আওয়ামীলীগ নেতা কর্মী আরো উপস্থিত ছিলেন সহায়কের সদস্য বৃন্দ শাহজাহান মন্ডল,রুবেল মৃধা,ইদ্রিস,মফিজ,বাতেন,আবুল প্রমুখ
সন্চালনায়: তামিমুল এ হাসান পরিচালনায় শাহ আলম
আয়োজনে- সহায়ক ও গ্রীন লীফ একাডেমি

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে প্রমাণ্য চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত

মোঃ রেজুয়ান খান রিকন,গোবিন্দগঞ্জ প্রতিনিধি: গোবিন্দগঞ্জে মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে প্রমাণ্য চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ সোমবার সকালে কোমরপুর চৌমাথা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এই প্রমাণ্য চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। কোমরপুর মুক্তিযুদ্ধ চেতনা বাস্তবায়ন পরিষদের উদ্যোগে এই আলোকচিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। প্রদর্শনী উদ্বোধণ করেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম। কোমরপুর মুক্তিযুদ্ধ চেতনা বাস্তবায়ন পরিষদের আহবায়ক মোস্তাফিজুর রহমান নজমু’র সভাপতিত্বে আলোকচিত্র প্রদর্শনীতে বক্তব্য রাখেন, গাইবান্ধা জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডা ইউনিটের অর্থ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাবেক ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম প্রমুখ। প্রদর্শনীতে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সহ বিপুল সংখ্যক এলাকাবাসী প্রদর্শনী পরিদর্শন করেন। আগামী দুই দিন এই প্রদর্শনী সবার জন্য উম্মুক্ত থাকবে। মুক্তিযুদ্ধের দূর্লভ বিভিন্ন প্রমাণ্য চিত্র আলোকচিত্র এই প্রদর্শনীতে ঠাঁই পেয়েছে।

বড়াইগ্রামে বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে স্বাধীনতা দিবস পালন


প্রতিনিধি বড়াইগ্রাম:
নাটোরের বড়াইগ্রামে বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে রবিবার মহান স্বাধীনতা দিবস পালিত হয়েছে। সকালে বনপাড়া বাইপাস মোড়ে বঙ্গবন্ধুর ম্যূরালে পুস্পস্তবক অর্পনের মধ্য দিয়ে দিনের কর্মসূচী শুরু হয়। বনপাড়া মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইশরাত ফারজানার সভাপতিত্বে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কুচকাওয়াজ, ডিসপ্লে প্রদর্শনী ও মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নাটোর-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল জলিল, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শামসুল হক, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহরিয়ার খাঁন, শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব অনার্স কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রাজ্জাক মোল্লা প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

ফুলবাড়ীয়ায় স্বাধীনতা দিবসে হামর্দদ শাখার ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প


ফুলবাড়ীয়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি ঃ প্রতিবছরের ন্যায় এবারও হামর্দদ ফুলবাড়ীয়া শাখার উদ্যোগে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে গরীব, অসহায় ও দুস্থ রোগীদের মাঝে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান এবং ঔষধ বিতরণ করা হয়। ক্যাম্পে সকলকে শরবত রুহু আফজা দিয়ে আপ্যায়ন করা হয়। এদিন সকাল ১০ঘটিকা থেকে দুপুর ১২ঘটিকা পর্যন্ত হামর্দদ চিকিৎসা ও বিক্রয় কেন্দ্রে আগত শতাধিক দ্ররিদ্র, অসহায় ও দুস্থ রোগীরা এ সেবা গ্রহণ করেন। হামর্দদ ফুলবাড়ীয়া শাখার ম্যানেজার মো. আব্দুর রব এর সভাপতিত্বে চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল (পিজি হাসপাতাল) কলেজের মেডিসিন, ডায়াবেটিস ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডাঃ আশরাফুল আলম (কবির) এমবিবিএস। চিকিৎসা সেবা গ্রহণকারী রোগিদের মধ্যে ঔষধ বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন হামর্দদ ল্যাবরেটরীজ (ওয়াক্ফ) বাংলাদেশ ফুলবাড়ীয়া শাখার রুহুল আমিন, মোঃ রবিউল ইসলাম প্রমুখ।

ফুলবাড়ীয়ায় আগুনে পুড়ে ২৫ লাখ টাকার ক্ষতি
ফুলবাড়ীয়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি ঃ ফুলবাড়ীয়া উপজেলার কালাদহ ইউনিয়নের ইয়াদ আলী মার্কেটে আগুন লেগে ৭ দোকান পুড়ে গেছে। শনিবার ভোর রাতে পল্লী বিদ্যুতের শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে। এতে ২৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। ফায়ার সার্ভিস ও বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, শনিবার ভোর ৪ টার দিকে দেলোয়ারের দর্জি ও কাপড়ের দোকান থেকে বিদ্যুতের শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত। মুহুর্তে আগুন ছড়িয়ে পড়ে ৭ দোকানে। পুড়ে যাওয়া বিষ ও সার দোকানী তোফাজ্জল হোসেন জানান, আগুনের লেলিনাহান শিখা মুহুর্তে ছড়িয়ে পড়ায় কোন মালামাল রক্ষা করা যায়নি। স্থানীয় চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম জানান, বাজারে আগুন লাগার বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসারকে জানানো হয়েছে। ক্ষতিক্ষতি নিরুপন চলছে। ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার নূরুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রন করা হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান হবে প্রায় ২৫ লাখ টাকা।

মাগুরায় স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরায় রবিবার নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত হয়েছে ।
এ উপলক্ষে মাগুরা জেলা প্রশাসন বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহন করে । কর্মসূচীর মধ্য ছিল ভোরে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্বে পুষ্পস্তবক অর্পন, সূযোদয়ের সাথে সাথে সরকারি বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন , মাগুরা স্টেডিয়ামে পুলিশ ,আনসার .ভিডিপি ,স্কাউট,গাইডস ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অংশ গ্রহনে কুচকাওয়াজ ও শরীরচর্চা প্রদর্শনী ,মুক্তিযোদ্ধাদের সংবধনা, জাতির শান্তি ,সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি কামনা কওে সকল মসজিদে বিশেষমোতাজাত , চলচ্চিত্র প্রদশনী , সন্ধ্যায় আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান । সকাল ৮ টাই বীর মুক্তিযোদ্ধা আছাদুজ্জামানস্টেডিয়ামে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অংশ গ্রহনে কুচকাওয়াজে সালাম জানান জেলা প্রশাসক মুহ: মাহবুবর রহমান ও পুলিশ সুপার মুনিবুর রহমান । তাছাড়া বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন নানা কর্মসূচীর মাধ্যমে দিবসটি পালন করে ।

রাণীনগরে মুক্তিযোদ্ধাদের জাতীয় দিবস উদযাপন


নওগাঁ প্রদিতনিধি: “স্বাধীনতা দিবসের অঙ্গিকার জঙ্গি ও সন্ত্রাস মুক্ত ডিজিটাল বাংলাদেশ চাই ” এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে নিয়ে নওগাঁর রাণীনগরে যথাযোগ্য মর্যদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন করেছে রাণীনগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড কাউন্সিল। রোববার দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে রাণীনগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড অফিস থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীটি প্রধান প্রধান স্থান প্রদক্ষিণ শেষে রাণীনগর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এসে শেষ হয়। র‌্যালী শেষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এ্যাড. ইসমাইল হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিতি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংষদ সদস্য মো: ইসরাফিল আলম। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আ’লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা শহিদুল্লাহ, নির্বাহী কর্মকর্তা সোনিয়া বিনতে তাবিব, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হারুনুর রশিদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ছনিয়া ইসলাম, সহকারি কমান্ডার সরদার মো: আব্দুল ওয়াহিদ প্রমুখ। আলোচনা সভা শেষে অস্বচ্চল মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের মাঝে আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়।

খাগড়াছড়িতে চাকমা, মারমা ও ত্রিপুরা মাতৃভাষার প্রশিক্ষন সম্পন্ন


বিপ্লব তালুকদার : খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি॥
খাগড়াছড়িতে চাকমা,মারমা ও ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষা অফিসারদের মাতৃ ভাষায় প্রশিক্ষণ সম্পন্ন হয়েছে।শনিবার দুপুরে খাগড়াছড়ির বেসরকারী স্থানীয় উন্নয়ন সংস্থা জাবারাং কল্যান সমিতির উদ্যোগে অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠান সমিতির হল রুমে অনুষ্ঠিত হয়। মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন এর অর্থায়নে খাগড়াছড়ির বিভিন্ন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক,সহকারী শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষা অফিসারসহ মোট ২৯ জনকে চাকমা,মারমা ও ত্রিপুরা মাতৃভাষায় প্রশিক্ষণ প্রদান করে খাগড়াছড়ির বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা জাবারাং কল্যান সমিতি।
সমাপনী অনুষ্ঠানে জাবারাং কল্যান সমিতির কর্মসুচী সংগঠক বিনোদন ত্রিপুরার সঞ্চালনায় সমিতির নির্বাহী পরিচালক মথুরা বিকাশ ত্রিপুরার সভাপতিত্বে প্রধান অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,খাগড়াছড়ি জেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ফাতেমা মেহের ইয়াসমিন, এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা রির্সোস কর্মকর্তা রিন্টু কুমার চাকমা,চাকমা ভাষার প্রশিক্ষক খাগড়াছড়ি কলেজিয়েট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক আর্যমিত্র চাকমা, মারমা ভাষার প্রশিক্ষক ডাঃ অংক্যজাই মারমা,ত্রিপুরা ভাষার প্রশিক্ষক প্রার্থনা কুমার চাকমাসহ প্রশিক্ষণার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। প্রশিক্ষণার্থী দীঘিনালা উপজেলার সহকারী শিক্ষা অফিসার হ্যাপি চাকমা বলেন আমি চাকমা হয়ে চাকমা ভাষায় কথা বলতে পারি কিন্তু আমার মাতৃভাষার বর্ণ গুলো লিখতে পারতাম না। এই প্রশিক্ষণ পেয়ে এখন আমি লিখতে ও পড়তে পারি। বর্তমানে আমি একজন পুরিপূর্ন চাকমা। একই সুরে বলেন মারমা প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষক ক্যাচহ্লা মারমা ও ত্রিপুরা প্রশিক্ষণার্থী অমর সিং ত্রিপুরা ও একই কথা বলেন।
জাবারাং কল্যান সমিতির নির্বাহী পরিচালক মথুরা বিকাশ ত্রিপুরা প্রশিক্ষণার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন মাতৃভাষা নিজের প্রযোজনে শিখা আপনারা মনে করবেন না অন্যের বা শিক্ষার্থীদের শিখানোর উদ্দেশ্যে নয়। যদি নিজের প্রযোজনে মনে করে শিখা হয় তাহলে ভাষাকে সহজে আয়ত্ব করা যাবে।
খাগড়াছড়ি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বলেন যখন মাতৃ ভাষায় বই বিতরন করা হয়। তখন অনেকে বলেছিলেন কিভাবে শিক্ষকেরা পড়াবেন। নিজেরা তো পারেন না। আর শিক্ষার্থীদের পড়াবেন কিভাবে। আস্তে আস্তে তা দুর হচ্ছে। এই প্রশিক্ষনে ২৯ জন প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। তারা সবাই প্রশিক্ষকের কাজ করবেন। খাগড়াছড়ির বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা জাবারাং কল্যান সমিতির এই উদ্যোগকে তিনি স্বাগত জানিয়েছেন।
তিনি আরো বলেন সরকারী ভাবে সকল শিক্ষককে মাতৃভাষায় প্রশিক্ষণ দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। তিনি ইতি মধ্যে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলেছেন। তিনি ও আশ্বস্ত করেছেন বলে তিনি জানান।
উল্লেখ্য যে, গত ১৯ তারিখে জাবারাং কল্যান সমিতির হল রুমে ৭ দিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্ভোধন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী।

শিশুর মনোজগতকে প্রসারিত করতে বহুমাত্রিক পদক্ষেপ নিতে হবে: সৈয়দ মাশুক-এ-মইনুদ্দীন

মইনীয়া শিশু-কিশোর মেলার উদ্যোগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির স্বোপর্জিত স্বাধীনতা চত্বরে চিত্রাংকন ও সুন্দর হস্তলিপি প্রতিযোগিতা আজ ২৪ মার্চ জুমা’বার অনুষ্ঠিত হয়। এতে উদ্বোধক ছিলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মো: আখতারুজ্জামান। উদ্বোধনী বক্তব্যে তিনি বলেন, আজকে যারা শিশু কিশোর তারাই আগামী দিনে আমাদের নেতৃত্ব ও দেশের হাল ধরবে। তাদেরকে অমানবিক কাজে ব্যবহার ও শিশুদের ওপর চলা সকল ধরনের নিষ্ঠুরতা-নৃশংসতাকে সকলেই ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়ানোর বিকল্প নেই। তিনি বলেন, শিশু ধর্ষণ, শিশুশ্রম ও শিশুদের ওপর নৃশংসতার বিরুদ্ধে বিশ্ব বিবেককে সোচ্চার হতে হবে। সবার মিলিত প্রয়াসে এই বিশ্বকে শিশুদের জন্য নিরাপদ করে তুলাই আমাদের দায়িত্ব। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শাহজাদায়ে গাউছুল আ’যম মাইজভাণ্ডারী হযরত সৈয়দ মাশুক-এ-মইনুদ্দীন আল্-হাসানী (ম.জি.আ.)। তিনি বলেন, শিশু কিশোররাই দেশের ভবিষ্যৎ। তাদেরকে শিক্ষাজীবন থেকেই সৎ, বিনয়ী, উদার ও মানবতাবাদী হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। শিশুদের মনোজাগতিক উৎকর্ষতা অর্জনে সৃজনশীল কর্মযজ্ঞে তাদের শামিল করতে হবে। এজন্য জ্ঞানবান্ধব সৃজনশীল বহুমাত্রিক পদেক্ষ নেয়ার আহ্বান জানান তিনি। সৈয়দ মাশুক-এ-মইনুদ্দীন বলেন, হযরত সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.) শিশুদের অত্যন্ত ভালোবাসাতেন। শিশুর মতো সারল্য ও উদারতা তাঁর মাঝে ছিল। তাঁর আদর্শে শিশুদের গড়ে তুলতে হবে। অনুষ্ঠানে চিত্রাংকন ও সুন্দর হস্তলিপি প্রতিযোগিতায় বিজয়ী খুদে শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরুষ্কার তুলে দেন অতিথিবৃন্দ। অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান বলেন, সকল শিশু স্বাভাবিকভাবে হাশিখুশিতে বেড়ে উঠবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা হলেও শিশুশ্রম ও শিশু নির্যাতন আজ উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। শিশুদেরকে স্বপ্ন দেখাতে হবে আমাদের। তাদের ভবিষ্যৎ পথ মসৃণ করতে হবে। তিনি বলেন শিশুদেরকে মাদক, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও অবক্ষয় থেকে রক্ষায় মনীষীদের জীবনাদর্শে তাদেরকে আলোকিত করতে হবে। মইনীয়া শিশু কিশোর মেলার নির্বাহী পরিচালক আশরাফীয়া আলী আহমদ নানতুর পরিচালনায় আলোচনায় অংশগ্রহণ করেনÑ এএসপি খলিফা শাহ মো: আবুল কালাম আজাদ, খলিফা মো: সামছুল আলম বকুল, খলিফা এস এম আক্তারুজ্জামান প্রমুখ। চিত্রাংকন ও সুন্দর হস্তলিপি প্রতিযোগীতায় ৫ শতাধিক প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন। চিত্রাংকন শেষে ১৯৭১ সনের ২৫শে মার্চের কালো রাতে ঢাকায় পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী কর্তৃক ঘুমন্ত, নিরীহ, নিরস্ত্র মানুষের ওপর নির্মম গণহত্যাকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস ঘোষণার দাবীতে মানববন্ধন করা হয়।


সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: এ্যাডভোকেট শেখ মোঃ আব্দুল্লাহ
সম্পাদক-প্রকাশক : শেখ মোঃ তৈয়াবুর রহমান॥

যুগ্ম সম্পাদক: এস এম শাহিদুল আলম॥ সহযোগী সম্পাদক: শেখ মোঃ আরিফ আল আরাফাত
সহ-সম্পাদক: (প্রশাসন) হাজী হাবিবুর রহমান শাহেদ: সহ সম্পাদক: আজমাল মাহমুদ
সম্পাদক কর্তৃক বাড়ী বাড়ী নং- ৫৩/২, ৪র্থ তলা, রাজ-নারায়ন-ধর রোড, কিল্লার মোড় বাজার, লালবাগ, ঢাকা-১২১১
ফোন: ০১৯১৮-২০১৬২৬, ফোন: ০১৭১৫-৯৩৩১৬৮
ই-মেইল- notunvor.news@gmail.com
Designed By Hostlightbd.com
| Cyberboss.org
Translate »