Category: জাতীয়

‘ফল ভালো হবে না’ মেয়রকে হুমকি হকার নেতাদের

* হকার সংখ্যা ৩ লাখ থাকলেও তালিকায় ১৬শ

উচ্ছেদের ফল ভালো হবে না বলে মেয়রকে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন হকার সমন্বয় পরিষদের নেতারা। গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে হকারদের ১৬ সংগঠনের জোট বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে হকারদের জন্য পুনর্বাসন নীতিমালা তৈরির দাবি জানানো হয়েছে। এদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) উচ্ছেদ অভিযান বন্ধ করতে তৎপর হকার্স ইউনিয়নসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা। গত দুই দিন ধরে গুলিস্তান ও পল্টনসহ ফুটপাতে উচ্ছেদের সময় ডিএসসিসির কর্মকর্তা ও পুলিশকে লক্ষ করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে হকাররা। আর এই হামলার নেতৃত্ব দিচ্ছে ফুটপাত ও রাস্তা দখলকারী চাঁদাবাজদের একটি মহল। তবে হামলা বন্ধ করতে কঠোর নজরদারিতে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। পুলিশের কর্মকর্তারা জানান, যারা হকারদের সাথে হামলা করছে তাদের ধরতে অভিযান চলছে। ডিএসসিসির মেয়র সাঈদ খোকন বলছেন, এসব হকার সংগঠন ৭/৮ দিন আগে থেকেই গঠন করা হচ্ছে। তবে সন্ধ্যা ছাড়া সকালে হকারা বসলেই তাদের বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান চলবে।

জানা গেছে, গুলিস্তান, মতিঝিন ও পল্টনসহ লাইনম্যানের মাধ্যমে একটি মহল ফুটপাতে বসা ৩ লাখ হকারের কাছ থেকে চাঁদা নিলেও হকার সমন্বয় পরিষদের তালিকায় রয়েছে মাত্র ১৬শ’ হকারের নাম। এদিকে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে কোনরকম বাধা ছাড়াই গুলিস্তানে হকারদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খান মো. নাজমুস সোয়েব এ অভিযান পরিচালনা করনে। তিনি বলেন, সকাল থেকে অভিযান শুরু হয়েছে। এখন পর্যন্ত কেউ বাধা দেয়নি। কেউ প্রতিরোধ করতে আসলে তা মোকাবিলা করা হবে। তিনি জানান, গুলিস্তান ফ্লাইওভারের নিচে ও গোলাপ শাহ মাজার এলাকায় অভিযান চালানো হয়।

গত ১১ জানুয়ারি দুপুরে নগর ভবনে হলিডে মার্কেট চালু ও হকার সমস্যা নিয়ে হকার নেতাদের সঙ্গে এক বৈঠক করেন ডিএসসিসি মেয়র সাঈদ খোকন। বৈঠকে জাতীয় হকার্স লীগ, ছিন্নমূল হকার্স লীগ, জাতীয় হকার্স ফেডারেশন, হকার্স ফেডারেশনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। গত সোমবার সকাল ১০টার দিকে পুনর্বাসন ছাড়া হকার উচ্ছেদের প্রতিবাদে নগরভবন ঘেরাও করতে যায় বাংলাদেশ জাতীয় হকার্স ইউনিয়নের কর্মকর্তারা। তবে পুলিশি বাধায় তারা নগরভবনের কাছে যেতে পারেনি। বঙ্গবাজার মোড়ে অবস্থান নিয়ে তারা বিক্ষোভ দেখায়। পরে দুপুর পৌনে ১টার দিকে হকারদের একটি দল মেয়র সাঈদ খোকনের কাছে স্মারকলিপি দিতে যায়। পুনর্বাসন ছাড়া হকার উচ্ছেদ না করা, হকারদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দেয়া, চাঁদাবাজি বন্ধ করা, হকারদের ওপর ‘দমন-পীড়ন’ বন্ধ এবং প্রকৃত হকারদের তালিকা করে পরিচয়পত্র দেয়াসহ ১০ দফা দাবির কথা স্মারকলিপিতে তুলে ধরেন তারা। এভাবেই হকারদের বিভিন্ন সংগঠন রয়েছে। তাদের নিয়ন্ত্রণ করছে হকারের কিছু নেতারা বলে এলাকাবাসী জানায়।

ভূমিকম্প গণসচেতনতা বিষয়ে জাতীয় প্রচারাভিযান উদ্বোধন

ঢাকা, ৫ মাঘ (১৮ জানুয়ারি) :
ভূমিকম্প গণসচেতনতা বিষয়ে জাতীয় প্রচারাভিযানের উদ্বোধন করা হয়েছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব মোঃ শাহ কামাল আজ রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে এ প্রচারাভিযান উদ্বোধন করেন। রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ ২০টি স্থানসহ ভূমিকম্পপ্রবণ জেলাগুলোতে আগামীকাল থেকে এ প্রচারাভিযানের কাজ শুরু হবে। ইউএনডিপি প্রচারাভিযানের ডকুমেন্টারি, প্রচারপত্র ইত্যাদি তৈরি করেছে। ভূমিকম্প তথ্য দিয়ে সাজানো একটি ক্যারাভান রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অবস্থান করে সাধারণ মানুষকে বিভিন্ন তথ্য অবহিত করে সচেতন করবে। এ সময় শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষকে অবহিত করার জন্য নির্মিত ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়।উদ্বোধনকালে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব বলেন, বাংলাদেশ বন্যা ও সাইক্লোনে ক্ষয়ক্ষতি দৃশ্যমান হারে কমিয়ে আনতে পারলেও বড় ধরনের ভূমিকম্পের অভিজ্ঞতা না থাকায় প্রস্তুতি নিয়ে কিছুটা পিছিয়ে আছে। শতবছর পূর্বে এদেশে বড় ধরনের ভূমিকম্প হওয়ায় পুনরায় বড় ধরনের ভূমিকম্প হওয়ার শঙ্কা তৈরি হয়েছে। তাই সাধ্যমতো পূর্ব প্রস্তুতি গ্রহণপূর্বক সচেতনতা তৈরি করতে হবে। তিনি বলেন, নিজেদের জীবন রক্ষার তাগিদেই বিল্ডিং কোড মেনে বাড়িঘর তৈরি করা প্রয়োজন। তিনি আরো বলেন, ভূমিকম্প মানুষের ক্ষতি করে না, ক্ষতি করে ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়ে। তাই ঘরবাড়ির ধ্বংসস্তুপ থেকে সবাইকে নিরাপদ থাকতে হবে। ইউএনডিপির কান্ট্রি ডিরেক্টর সুদীপ্ত মুখার্জী, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ রিয়াজ আহম্মদ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

রপ্তানি আয় ২০২১ সালে ৬০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাবে — বাণিজ্যমন্ত্রী


ঢাকা, ৫ মাঘ (১৮ জানুয়ারি) :
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, ২০২১ সালে রপ্তানি আয় ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়ে যাবে।
তিনি আজ ঢাকায় ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় চার দিনব্যাপী বাংলাদেশ গার্মেন্টস্ এক্সেসরিজ এন্ড প্যাকেজিং ম্যানুফ্যাকচারার্স এন্ড এক্সেপোর্টাস এসোসিয়েশন (বিজিএপিএমইএ) আয়োজিত ‘গার্মেন্টেক-২০১৭’-এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, ২০০৫ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তৈরিপোশাক রপ্তানিতে কোটা প্রথা বাতিল করা হয়। সে সময় অনেকেই মনে করেছিলেন বাংলাদেশের তৈরিপোশাক শিল্প আর এগুতে পারবে না। এ শিল্পে শিশু শ্রম বন্ধের চ্যালেঞ্জ এসেছিল। সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে বাংলাদেশের তৈরিপোশাক শিল্প দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। এখন একক দেশ হিসেবে বাংলাদেশের তৈরিপোশাকের সবচেয়ে বড় বাজার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। গত বছর সেখানে রপ্তানি হয়েছে ৬ দশমিক ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের তৈরিপোশাক।
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে কৃষিপণ্য রপ্তানিতে ২০ শতাংশ, চামড়াজাত পণ্য রপ্তানিতে ১৫ শতাংশ, জাহাজ রপ্তানিতে ১০ শতাংশ, ফার্নিচার রপ্তানিতে ১৫ শতাংশ নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। ফলে রপ্তানি দ্রুত বাড়ছে। ৭ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা সফলভাবে বাস্তবায়িত হলে দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৮ ভাগ হবে। চলতি বছর শেষে প্রবৃদ্ধি হবে ৭ দশমিক ৫ ভাগ।
অষ্টমবারের মতো আয়োজিত এ মেলায় ২৪টি দেশের ৪০০টি প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৮০০টি স্টল রয়েছে। প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।
বিজিএপিএমইএ-এর প্রেসিডেন্ট মো. আব্দুল কাদের খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক, এফবিসিসিআই-এর প্রথম সহসভাপতি মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, বিজিএমই-এর প্রেসিডেন্ট মো. সিদ্দিকুর রহমান, বিইডিএস-এর সিনিয়র রিসার্স ফেলো ড. নাজনিন আহমেদ, ভারতের এ এস কে ট্রেড এন্ড এক্সিবিশনস প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক নন্দ গোপাল কে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ৩ বছর কেমন কাটলো?

তিন বছর হলো স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। এ সময় নানা চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন তিনি। অর্জন করেছেন অনেক অভিজ্ঞতা। মন্ত্রী থাকাকালে তার ভালো ও খারাপ দিকগুলোর কথা বললেন তিনি।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমার ভালো লাগার দিক হল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। তিনি আমাকে কোনো দিন বলেননি যে এই লোকটাকে ছেড়ে দাও। সব সময় বলেছেন, অপরাধী যেই হোক তাকে ধর।আসাদুজ্জামান খাঁন আরো বলেন, অনেক জায়গায় অনেক ক্ষেত্রে অনেক বিধি নিষেধ থাকে যে, ওমুক রাজনৈতিক নেতাকে ছেড়ে দাও, কেন ধরেছো। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী কোনোদিন আমাকে এ ধরনের কথা বলেননি।মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের নতুন নেতাদের সৌজন্য সাক্ষাতে এক প্রশ্নের জবাবে এ সব কথা বলেন তিনি। চ‌্যালেঞ্জের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, চ্যালেঞ্জ অনেক। হঠাৎ হঠাৎ নানান ধরনের ষড়যন্ত্র হয়। তার মোকাবেলা করতে হয়। কারণ বাংলাদেশে ষড়যন্ত্রের অভাব নেই। আমাদের ষড়যন্ত্র আজকের নয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশকে যে জায়গায় নিয়ে গেছেন। তাতে ষড়যন্ত্র হবে না, এমন চিন্তাই আমরা করি না। আমাদের ষড়যন্ত্র হচ্ছে, হতে থাকবে।সৌজন্য সাক্ষাতে ক্র্যাব সভাপতি আবু সালেহ আকন ও সাধারণ সম্পাদক সরোয়ার আলমসহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন। –

জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা অনুযায়ী নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন না হলে বিএনপি রাজপথে নামবে———–খন্দকার মোশারফ

জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা অনুযায়ী নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন না হলে বিএনপি রাজপথে নামবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। মঙ্গলবার বিকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন। তিনি বলেন, ‘ফেব্রুয়ারি মাসে রকীবউদ্দিন মার্কা নির্বাচন কমিশনের সময়কাল শেষ। আমরা দেখতে চাই যে, মহামান্য রাষ্ট্রপতি কী করেন? তিনি যে সার্চ কমিটি করবেন, তারাই নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করবে। তখন জনগণ থেকে শুরু করে পেশাজীবীরাসহ সকলে বুঝতে পারবেন যে, এটা আওয়ামী লীগের রকীবউদ্দিন মার্কা নির্বাচন কমিশন হয়েছে নাকি জনগণের দাবির প্রেক্ষিতে হয়েছে।’ খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘জনগনের প্রত্যাশা অনুযায়ী যদি নির্বাচন কমিশন গঠন না হয়, তাহলে বুঝা যাবে যে, এই সরকার আগের খেলায় রয়েছে। আমরা স্পষ্টভাবে বলতে চাই, সরকারের ওই রকম পরিকল্পনা বা খায়েশ থাকলে তার বিরুদ্ধে অবশ্যই আমরা রাস্তায় নামবো।’
নির্বাচন কমিশন নিয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপ নিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, ‘আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া আগে-ভাগেই কীভাবে নির্বাচন কমিশন হবে, এই কমিশন গঠনের জন্য কীভাবে সার্চ কমিটি হবে- সুনির্দিষ্ট একটা প্রস্তাবনা দিয়েছেন, ছক দিয়েছেন। সেটাকে অনার করে মহামান্য রাষ্ট্রপতি আজকে সংলাপ চালিয়ে যাচ্ছেন। মহামান্য রাষ্ট্রপতি আমাদের প্রথম ডেকেছিলেন। দেশ-বিদেশকে আমরা দেখাতে চাই যে, আমরা গণতান্ত্রিকভাবে সমাধান চাই।’
তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক উদার রাজনৈতিক দল। এই দল, এই দলের প্রতিষ্ঠাতা বাকশালের নাকপাশ থেকে মুক্ত করে এদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র দিয়েছেন। দেশনেত্রী খালেদা জিয়া সংসদীয় গণতন্ত্র দিয়েছেন। আমাদের ওপর এটা পবিত্র দায়িত্ব এই গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করা, দেশের মানুষকে ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দেয়া। এটার জন্য আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি।’
নারায়নগঞ্জের সাত খুনের মামলার নিম্ন আদালতের রায় সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘সোমবার দেখেছেন একটি মামলায় র‌্যাবের কতগুলো অফিসারকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। তারা কারা? বিভিন্ন সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য। এটা দেখিয়ে তারা (সরকার) দেখাতে চায়, দেশে আইনের শাসন আছে। আসলে তা নয়। এমনভাবে ঘটনাকে ঘটিয়েছে যে, তারা এটাকে কোনোক্রমে আর লুকাতে পারেনি।  সেজন্য এই বিচারটা হয়েছে।’
বিএনপির চিকিৎসক সংগঠন ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ড্যাব এর উদ্যোগে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ‘স্বাধীনতা যুদ্ধ, গণতন্ত্র ও জিয়াউর রহমান’ শীর্ষক এই আলোচনা সভা হয়।
এতে জিয়াউর রহমানের বর্ণাঢ্য জীবন-ইতিহাস তুলে ধরে খন্দকার  মোশাররফ বলেন, ‘জিয়াউর রহমানকে আওয়ামী লীগ ভয় পায় বলেই বিএনপির ওপর এতো অত্যাচার-নির্যাতন। গণতন্ত্র  দেশে থাকুক না থাকুক বিএনপিকে দুর্বল করতে হবে- এটা হচ্ছে সরকারের পলিসি। আজকে তারা গণতন্ত্রকে বাক্সবন্দি করেছে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি প্রহসনের  ভোটবিহীন নির্বাচন করে ক্ষমতাকে দখল করে আছে।’ ড্যাবের নির্বাহী কমিটির সদস্য অধ্যাপক সিরাজ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন- ড্যাব মহাসচিব ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, অধ্যাপক আবদুল মান্নান মিয়া, অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুস, অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম লাবলু প্রমুখ।

State Minister for Foreign Affairs Mr. Md. Shahriar Alam, MP attended the 15th ACD Ministerial Meeting in Abu Dhabi


Abu Dhabi, Tuesday, 17 January 2017
Hon’ble State Minister for Foreign Affairs H.E. Mr. Md Shahriar Alam, MP led the Bangladesh delegation at the 15th Ministerial Meeting of Asia Cooperation Dialogue (ACD) in Abu Dhabi on 17 January 2017. 34 Asian Countries participated in the meeting under the theme “Sustainable Energy”. Bangladesh is a Co-Prime Mover in two pillars of cooperation in ACD named 1) Inter-relation of Food, Water and Energy Security and 2) Connectivity. His Highness Sheikh Abdullah bin Zayed Al Nahyan, Minister of Foreign Affairs and International Cooperation of the United Arab Emirates chaired the meeting.
In the meeting, the State Minister stated in his speech that the continued economic growth of Bangladesh has created enormous demand for energy and power. Under the leadership of Hon’ble Prime Minister of Bangladesh Her Excellency Sheikh Hasina, Bangladesh has become able to produce 15,000 MW electricity. Government has an ambitious plan to produce 24,000 MW by 2021 and 40,000 MW by 2030. Bangladesh has installed 4.5 million solar home systems in remote and rural areas. The goal of Bangladesh is to create an energy mix with a good balance of renewable energy to attain sustainable development. At present Bangladesh is producing 430 MW electricity from renewable energy sources. Bangladesh expects that the Energy Action plan to be adopted by ACD would play an important catalytic role to respond challenges and opportunities that Asia facing today.
At the sideline of the ACD meeting, the State Minister called on H.H. Sheikh Abdullah bin Zayed Al Nahyan, Minister of Foreign Affairs and International Cooperation of the United Arab Emirates on 17 January 2017. The State Minister handed over a letter of condolence from Bangladesh Foreign Minister to UAE Foreign Minister on the death of five UAE officials in Kandahar, Afghanistan who were killed in a terrorist attack earlier this month. In the meeting both the Ministers discussed important bilateral issues. They agreed to strengthen bilateral cooperation in the field of civil aviation, trade, economic and cultural matters. The State Minister requested the UAE Foreign Minister to ease the visa process for Bangladeshi nationals including businessmen, workers and tourists. The UAE Foreign Minister assured that UAE Government would give due consideration in this matter. The UAE Foreign Minister appreciated the initiatives taken by Government of Bangladesh to develop skilled workforce and recruitment of manpower by other countries. He also requested the State Minister for active participation of Bangladesh at the Expo 2020 to be held in Dubai. Both of them emphasized on arranging high level visits, exchange of trade and cultural delegations and expressed their interests to work closely to further strengthen the relations between Bangladesh and the UAE. Ambassador of Bangladesh to the UAE Mr. Muhammad Imran, officials of the Embassy and officials of the Foreign Ministry of Bangladesh and the Foreign Ministry of the UAE were present during the meeting.

কাওড়াকান্দি-শিমুলিয়া নৌপথের দুরুত্ব কমবে ৫কিলোমিটার কাওড়াকান্দি ফেরিঘাট কাঁঠালবাড়িতে স্থানান্তর করলেন নৌপরিবহন মন্ত্রী


অজয় কুন্ডু, মাদারীপুর:
মাদারীপুরের কাওড়াকান্দি ফেরিঘাট কাঁঠালবাড়িতে স্থানান্তর করেছেন নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান। রবিবার শিবচর উপজেলার কাঁঠালবাড়ি ফেরিঘাট উদ্বোধন শেষে নৌপরিবহন মন্ত্রী বলেন, কাওড়াকান্দি ফেরিঘাট কাঁঠালবাড়িতে স্থানান্তরের ফলে অনেক যানবাহন পার্কিং করতে পারবে, ফলে ঘাট এলাকায় কোন যানজট থাকবে না।
এ সময় নৌপরিবহন মন্ত্রী আরো বলেন, শুধু কাঁঠালাবাড়ি ফেরিঘাটের উন্নয়ন নয়, সড়ক পথেরও উন্নয়ন করা হয়েছে। যানবাহনগুলো একটি সড়ক দিয়ে ফেরিতে উঠবে, আরকেটি সড়ক দিয়ে ফেরি থেকে নামবে। যার ফলে রাস্তায় মুখোমুখি দুর্ঘটনা ও যানজট হওয়ার কোন সম্ভবনা নেই।
নৌমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে উন্নয়নের গতি সৃষ্টি করছেন, তারই মাইলফলক হিসেবেই এই কাঁঠালবাড়ি ফেরিঘাট। নৌপথের দুরুত্ব ৫ কিলোমিটার কমে ৮ কিলোমিটার দাড়ালেও ফেরি ভাড়া কমছে না। এদিকে লঞ্চ ও স্পীডবোট ভাড়া কমানো নিয়ে চিন্তাভাবনা করা হবেও জানান নৌমন্ত্রী।
এ সময়ন উপস্থিত ছিলেন মাদারীপুর-১ আসনের সাংসত সদস্য নুর-ই-আলম লিটন চৌধুরী, মাদারীপুরের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাংসদ রোকসানা ইয়াছমিন ছুটি, পদ্মা সেতুর প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম, সেতু বিভাগের সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, জেলা প্রশাসক মো. কামাল উদ্দিন বিশ^াস, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মিয়াজউদ্দিন খান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সরোয়ার হোসেনসহ অনেকেই।

সরকার প্রতিমাসে ৩১ লাখ ৫০ হাজার অসহায় বয়স্ক মানুষ পাঁচশ’ টাকা করে মাসিক ভাতা গ্রহণ করেন

বর্তমান সরকারের ২০৩০ সালের মধ্যে দারিদ্র্য নির্মূল করার নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার অংশ হিসেবে প্রতিমাসে ৫১ লাখ ২০ হাজার সুবিধাভোগী দুস্থ ভাতা পাচ্ছেন।  দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে বর্তমান সরকার ক্রমান্বয়ে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সার্বিক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা আজ জানান, দেশ থেকে দারিদ্র্য নির্মূল সরকারসামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচির আওতায় ৫১ লাখ ২০ হাজার প্রতিবন্ধী, বয়স্ক, বিধবা ও শারিরীকভাবে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর মাঝে সরকার এই ভাতা প্রদান করছে। তিনি বলেন, সরকার দারিদ্র্য বিমোচন ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার জন্য সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির লক্ষ্য ভিত্তিক সম্প্রসারণ ও এসব কর্মসূচির স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণের ওপর গুরুত্বারোপ করছে।
এর আগে, পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, সরকার ২০২০ সালের মধ্রে দারিদ্র্য বিমোচন হার ৮ দশমিক ৯ শতাংশ থেকে কমিয়ে চার শতাংশে আনতে সপ্তম পঞ্চ-বার্ষিক পরিকল্পনা (২০১৬-২০২০) গ্রহণ করেছে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী ও গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে একটি মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ইতোমধ্যে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদা অর্জন করেছে।  মন্ত্রণালয়ের সূত্র মতে, ২০১৬ সালে ১৪ লাখ ৯০ হাজার ১০৫ জন শারীরিক প্রতিবন্ধীকে শনাক্ত করা হয়েছে। তিনি বলেন, অস্বচ্ছল সুবিধাভোগী প্রতিবন্ধীরা মাসে পাঁচশ’ ও ছয়শ’ টাকা করে ভাতা পাচ্ছেন। অপরদিকে শারীরিক প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীরা তাদের শিক্ষার স্তর অনুযায়ী পাঁচশ’, ছয়শ’, সাতশ’ ও ১২শ’ টাকা করে অধ্যয়ন ভাতা পাচ্ছে।
মোট ৩১ লাখ ৫০ হাজার অসহায় বয়স্ক মানুষ পাঁচশ’ টাকা করে মাসিক ভাতা গ্রহণ করেন। ১১ লাখ ৫০ হাজার সুবিধাবঞ্চিত দরিদ্র, বিধবা ও স্বামী কর্তৃক নির্যাতিত নারীরা পাচ্ছেন মাসে পাঁচশ’ টাকা করে এবং ৭ লাখ ৫০ হাজার অস্বচ্ছল শারীরিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তি ছয়শ’ টাকা করে মাসিক ভাতা পাচ্ছেন।
সরকার ৭০ হাজার শিক্ষার্থীকে পাঁচশ’, ছয়শ’, সাতশ’ ও ১২শ’ টাকা করে অধ্যয়ন ভাতা প্রদান করছে।

সুযোগ পেলে পথশিশুরাও জাতীয় দলে খেলতে পারবে — মেহের আফরোজ চুমকি

ঢাকা, ৩ মাঘ (১৬ জানুয়ারি):
মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বলেছেন, সুযোগ পেলে পথশিশুরাও জাতীয় দলে খেলতে পারবে। তারা সবাই যোগ্য এবং সক্ষম। সকলের উচিত তাদের জন্য সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়া। তিিন আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের মাঠে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পথশিশু পুনর্বাসন কার্যক্রম ও বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা অপরাজেয় বাংলাদেশের যৌথ আয়োজনে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের অংশগ্রহণে এক ক্রিকেট টুর্নামেন্টে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন।তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন- আমাদের শিশুরা কেন রাস্তায় ঘুরবে? একটা শিশুও রাস্তায় ঘুরবে না, একটা শিশুও মানবেতর জীবনযাপন করবে না। প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশ বাস্তবায়নে কাজ করছে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়। পথ শিশু পুর্নবাসন কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ঢাকা শহরে চালু করা হয়েছে শেল্টার হোম। এ সমস্ত শেল্টার হোমে শিশুদের থাকা-খাওয়া, বিনোদন ও শিক্ষা কার্যক্রমের সুবিধা রয়েছে। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. আ ম স আরেফিন সিদ্দিকী এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পথশিশু পুনর্বাসন কার্যক্রমের প্রকল্প পরিচালক ড. আবুল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।এই ক্রিকেট টুর্নামেন্টে ঢাকা শহরের প্রায় ১৪টি শেল্টার হোমের শিশুরা ১৪টি দলে বিভক্ত হয়ে অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে দু’টি মেয়ে শিশুদের দলও রয়েছে। আজ সকালে জগন্নাথ হলের খেলার মাঠে পথশিশুদের এই ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাছিমা বেগম। বালকদের মধ্যে ডিআইসি বয়েজ শেল্টার হোম এবং বালিকাদের মধ্যে বস্তি শিক্ষা কেন্দ্র চ্যাম্পিয়ন হয়। প্রতিমন্ত্রী বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন।

ভিশন ২০২১ ও ২০৪১ অর্জনে দক্ষ ও প্রশিক্ষিত জনগোষ্ঠীর বিকল্প নেই —-এলজিআরডি মন্ত্রী


ঢাকা, ৩ মাঘ (১৬ জানুয়ারি): স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ভিশন ২০২১ ও ২০৪১ অর্জনে দক্ষ ও প্রশিক্ষিত জনগোষ্ঠীর বিকল্প নেই। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম ও ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত আয়ের দেশে পরিণত হতে হলে সকল ক্ষেত্রে প্রশিক্ষিত ও দক্ষ জনগোষ্ঠী প্রয়োজন। তিনি আজ বাংলাদেশ সচিবালয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগের সম্মেলন কক্ষে বঙ্গবন্ধু দারিদ্র্য বিমোচন ও পল্লী উন্নয়ন একাডেমি (বাপার্ড), গোপালগঞ্জ-এর পরিচালনা বোর্ডের ১ম সভায় সভাপতির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি সম্মান থেকে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বাপার্ড। বাপার্ড বিভিন্ন গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা ও গুণগত প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জনগণের জীবনমান উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে। তিনি সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা ও কর্মপদ্ধতি প্রণয়নের মাধ্যমে বাপার্ডের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে নির্দেশনা দেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত প্রকল্প ‘বঙ্গবন্ধু দারিদ্র্য বিমোচন প্রশিক্ষণ কমপ্লেক্স’-এর দ্রুত বাস্তবায়নেরও নির্দেশ প্রদান করেন। সভায় প্রতিমন্ত্রী মোঃ মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে প্রতিষ্ঠিত এ একাডেমি যাতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জনগোষ্ঠীর ভাগ্যোন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করে সেভাবে প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে কাজ করতে হবে। পূর্বতন বিআরডিবি ট্রেনিং একাডেমি ২০১২ সালে বাপার্ড নামে যাত্রা শুরু করে। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের দারিদ্র বিমোচন ও জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যে ১৬ নভেম্বর ২০১১ তারিখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাপার্ডের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আবদুল মালেক, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সচিব ড. প্রশান্ত কুমার রায়, বাপার্ডের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক আনন্দ চন্দ্র বিশ^াস (অতিরিক্ত সচিব) সহ বোর্ডের সদস্য ও কর্মকর্তাগণ।


সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: এ্যাডভোকেট শেখ মোঃ আব্দুল্লাহ
সম্পাদক-প্রকাশক : শেখ মোঃ তৈয়াবুর রহমান॥

যুগ্ম সম্পাদক: এস এম শাহিদুল আলম॥ সহযোগী সম্পাদক: শেখ মোঃ আরিফ আল আরাফাত
সহ-সম্পাদক: (প্রশাসন) হাজী হাবিবুর রহমান শাহেদ: সহ সম্পাদক: আজমাল মাহমুদ
সম্পাদক কর্তৃক বাড়ী বাড়ী নং- ৫৩/২, ৪র্থ তলা, রাজ-নারায়ন-ধর রোড, কিল্লার মোড় বাজার, লালবাগ, ঢাকা-১২১১
ফোন: ০১৯১৮-২০১৬২৬, ফোন: ০১৭১৫-৯৩৩১৬৮
ই-মেইল- notunvor.news@gmail.com
Designed By Hostlightbd.com
| Cyberboss.org
Translate »