Category: ক্রাইম রিপোর্ট

সাভারে নাবিল পরিবহনের এক সুপার ভাইজারকে কুপিয়ে জখম করেছে দুর্বৃওরা


মোঃ গোলাম মোস্তফা ,ঢাকাজেলা উত্তর প্রতিনিধি
পূর্ব শক্রুতার জের ধরে সাভারে শাহাদাৎ নামের (২৫) নাবিল পরিবহনের এক সুপার ভাইজারকে কুপিয়ে জখম করেছে দুর্বৃওরা।মঙ্গলবার ভোর রাতে সাভারের দক্ষিণ রাজাশন এলাকায় এঘটনা ঘটে।আহত ওই যুবকের বাবা শাহ আলম জানান ভোর রাতে তার ছেলে দক্ষিণ রাজাশন এলাকায় নিজ বাড়ির সামনে দাড়িয়ে ছিলেন। এসময় কয়েক জন দুর্বৃও তার ছেলেকে কিছু বুঝে ওঠার আগে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে আশঙ্কা জনক অবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য সাভারের এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। খবর পেয়ে সাভার মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান।এঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

পূর্ব ঘটনার জেরে খাগড়াছড়ি সরকারী কলেজে বহিরাগতদের হামলায় দুই ছাত্র আহত

বিপ্লব তালুকদার খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:
পূর্ব ঘটনার জেরে খাগড়াছড়ি সরকারী কলেজে বহিরাগতদের হামলায় দুই ছাত্র আহত হয়েছে। আহতের মধ্যে প্রথম বর্ষের ছাত্র ইয়াছিন(২০) ও পারভেজকে(১৮) খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ হামলার জেরে কলেজে পাহাড়ি ও বাঙালি ছাত্রদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। সেনা ও পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পুলিশ দু’জনকে আটক করেছে।কলেজে একটি সূত্র জানায়, ৮মার্চ খাগড়াছড়ি সরকারী কলেজে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া নিয়ে কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র সোনাক্য চাকমা ও জনি দে’র মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। সোনাক্য চাকমা জানান, সোমবার সকালে সে কলেজে আসলে জনি দে’র নেতৃত্বে বেশ কয়েকজন ছাত্র তার উপর হামলা চালায়। এতে সে আহত হয়। অপর দিকে জনি দে এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সোনাক্য চাকমার নেতৃত্বে বহিরাগতরা তার উপর হামলার চেষ্টা চালালে সে পালিয়ে আত্মরক্ষা করে।খাগড়াছড়ি সরকারী কলেজেরে অধ্যক্ষ প্রফেসর ড.আব্দুস সবুর খান জানান, দুই ছাত্রের মধ্যে কথা কাটাকাটির ঘটনায় তার কক্ষে দুই পক্ষকে নিয়ে বৈঠক চলাকালে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে হঠাৎ দুইপক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় দুই ছাত্র গুরুতর আহত হয়।পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এসএম মাসুম রানা জানান, অধক্ষ্যের কক্ষে দুই পক্ষকে নিয়ে বৈঠক চলাকালে ইউপিডিএফ সমর্থিত পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের এক দল বহিরাগত সন্ত্রাসী কলেজে ঢুকে হামলা চালায়।এ দিকে ঘটনার খবর পেয়ে খাগড়াছড়ি সদর জোনের জোন কমান্ডার লে.কর্ণেল জিএম সোহাগ ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এমএম সালাহউদ্দিনের নেতৃত্বে আইন-শঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।খাগড়াছড়ি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তারেক মো. আব্দুল হান্নান জানান, পরিস্থিতি অশান্ত করার চেষ্টার অভিযোগে দুপুর ১টার দিকে চেঙ্গী স্কোয়ার থেকে দুই বাঙালি ছাত্রকে আটক করা হয়েছে।

ফুলবাড়ীযায় নির্মাণ শ্রমিক খুন

ফুলবাড়ীয়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি ঃ ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়ায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে আব্দুল মোতালেব (৩৫) নামে এক হতদরিদ্র নির্মান শ্রমিক খুন হয়েছে। এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ১২নং আছিমপাটুলী ইউনিয়নের পাটুলি গ্রামে। নিহত নির্মান শ্রমিক মোতালেব পাটুলি গ্রামের মৃত আঃ কাদেরের ছেলে। এ ঘটনায় পুরো এলাকা জুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। মোতালেবের মৃত্যুর পর হত্যাকারীরা বাড়ি ঘর ছেলে পালিয়েছে বলে স্থানীয়রা জানায়। জানা যায়, গতকাল সোমবার ফজরের নামাজ পড়ার জন্য গ্রামের মুসলি¬রা মসজিদে যাবার পথে ধান ক্ষেতের আইলের পাশে মৃত অবস্থায় মোতালেবকে পড়ে থাকতে দেখে তার পরিবারের সদস্যদের খবর দেয়। ঘটনাটি ফুলবাড়িয়া থানায় অবহিত করা হলে দুপুর ১২ টার দিকে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ সময় আব্দুল মোতালেবের সাথে থাকা একটি মোবাইল সেট উদ্ধার করে পুলিশ। মোতালেবকে প্রথমে শ্বাসরোধ ও পরে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে বলে পুলিশ প্রাথমিক ধারণা করছে। এ বিষয়ে ফুলবাড়িয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল খায়ের জানায়, শ্রমিক মোতালেব হত্যার ঘটনাটি পরিকল্পিত। নিহত মোতালেবের শরীরে বেশ কয়েকটি ছুরির আঘাত এবং গলায় দাগ দেখা গেছে। জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরেই তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের পর পুরো ঘটনাটির সাথে কারা জড়িত তা জানা যাবে এবং এ ঘটনায় আসামিরা বাড়ী-ঘর ছেড়ে পালিয়েছে। পরিবার সূত্রে জানা যায়, আছিমপাটুলি গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে মোতালেব ও চাচাতো ভাই জামাল মিয়াদের সাথে পাশের বাড়ির সামাদ, তার ভাই কুমেদ আলী এবং তার দুই ছেলে মহর আলী ও মুসা মিয়ার সাথে দীর্ঘদিন যাবত জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এক মাস পূর্বে মোতালেব মিয়ারা রিবোধকৃত জমিতে বোর ধানের চারা লাগাতে গেলে প্রতিপক্ষ সামাদ ও কুমেদ আলীর ছেলেরা মোতালেবসহ কয়েকজনকে বেধরক মারপিট করে গুরুতর আহত করে। পরে এ ঘটনায় মোতালেবের চাচাতো ভাই জামাল উদ্দিন ৭ ফেব্র“য়ারি ১১ জনের বিরুদ্ধে ফুলবাড়িয়া থানায় মামলা করে (মামলা নং- ৯)। মামলায় আসামীরা হাজত থেকে জামিনে বের হয়ে আসার পর থেকেই জামাল ও মোতালেবের পরিবারকে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছিল বলে জানায় নিহতের পরিবারের সদস্যরা। উলে¬খ্য, ঘটনার দিন রাতে স্থানীয় বটতলা বাজারে হাফিজ উদ্দিনের বাড়িতে রাজমিস্ত্রির কাজ শেষে সেখান থেকে খাওয়া-দাওয়া করে রাত আনুমানিক ১০টায় বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেয় বলে জানায় হাফিজ উদ্দিনের স্ত্রী সুফিয়া খাতুন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

পঞ্চগড়ে হবিগঞ্জ থেকে আসা সন্দেহভাজন ৬ নারী আটক

পঞ্চগড় প্রতিনিধি:
হবিগঞ্জ থেকে আসা সন্দেহভাজন ৬ নারীকে আটক করেছে পঞ্চগড় সদর থানা পুলিশ। রোববার গভীর রাতে (রাত ১ টায়) শহরের তেলীপাড়া এলাকার একটি বাড়ি থেকে পুলিশ তাদের আটক করে।
পুলিশ জানায়, আটককৃতদের বাড়ি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট পৌরসভার চন্দনা এলাকায়। মানতের জন্য বার আউলিয়ার মাজার শরীফে যাওয়ার জন্য সন্ধার পর এক শিশুসহ হবিগঞ্জের মালেকা বেগম (২৮), সরুফা বেগম (৩০), আঙ্গুরা বেগম (৪৫), হাসনা খাতুন (৩০), আসিচয়া খাতুন (৪২) ও সুমি আক্তার (৩০) নামে ৬ নারী পঞ্চগড় জেলা শহরের ট্রাক টার্মিনাল এলাকায় আসেন। তারা রাত্রিযাপনের কথা বলে ওই মহল্লার রবিউল ইসলাম নামে এক পান দোকানীর বাসায় আশ্রয় নেয়। বিষয়টি স্থানীয়দের সন্দেহ হলে তারা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে ওই ৬ নারীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সোমবার সকালে ১৫১ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাদের আদালতে প্রেরণ করা হয়।
পঞ্চগড় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল হাসান সরকার সন্দেহভাজন ওই ৬ নারীকে আটক করার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আটককৃতদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ১৫১ ধারায় তাদের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে জিজ্ঞাসাবাদে কোন নিষিদ্ধ সংগঠনের সাথে তাদের সমৃক্ততা তথ্য পাওয়া যায়নি।

পঞ্চগড়ে সাংস্কৃতিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবিতে মানববন্ধন

পঞ্চগড় প্রতিনিধি:
পঞ্চগড়ে সাংস্কৃতিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবিতে মানববন্ধন করেছে জেলার নাট্যকর্মীরা। সোমবার সকালে নাট্য সংগঠন ভূমিজের আয়োজনে জেলা শহরের শের-ই-বাংলা পার্ক সংলগ্ন মহাসড়কে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। ঘন্টাব্যাপী এই মানববন্ধনে জেলা নাট্যকর্মী, সাংস্কৃতিক কর্মী, শিক্ষার্থীসহ সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেয়।
মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন পঞ্চগড় জেলা পরিষদের চেয়রম্যান আমানুল্লাহ বাচ্চু, জেলা পরিষদের সদস্য আখতারুন্নাহার সাকী, উদীচী শিল্পগোষ্ঠির সভাপতি শফিকুল ইসলাম, জেলা নাট্যসমিতির সভাপতি মিজানুর রহমান বাবলু, শিল্পকলা একাডেমির সাধারন সম্পাদক প্রহ্লাদ চন্দ্র বর্মন, ভূমিজের পরিচালক সরকার হায়দার। এ সময় বক্তারা পঞ্চগড়ে একটি সাংস্কৃতিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবি জোর দাবি জানান। পরে সাংস্কৃতিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবিতে গণ স্বাক্ষর সংগ্রহ করে নাট্যকর্মীরা। এর আগে বিশ্ব নাট্য দিবস উপলক্ষে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শহর প্রদক্ষিণ করে।
এছাড়াও বিশ্ব নাট্য দিবস উপলক্ষে ভূমিজ নাট্যগোষ্ঠী দিনব্যাপী গল্প বলা, একক অভিনয়, নাটক লেখা প্রতিযোগিতাসহ পথ নাট্য উৎসবের আয়োজন করেছে।

 

ঝিনাইদহে স্কুল মাঠে পশুর হাট, স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান এলোমেলো

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি বিদ্যালয়ের মাঠে বসেছে মহিষের হাট। তাই স্বাধীনতা দিবসটা রোববার নির্ধারিত দিনে উদযাপন করতে পারেনি শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। এক দিন আগে শিশুদের খেলাধুলা করিয়ে রাখা হয়। গতকাল শ্রেনী কক্ষের ভেতরে সারা হয় পুরস্কার বিতরণের আনুষ্ঠানিকতা।ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার ভাটই বাজারের এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম ভাটই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ঝিনাইদহ-কুষ্টিয়া মহাসড়কের পাশের ১২৭ বছরের পুরোনো বিদ্যালয়টি ১ একর ৩৮ শতক জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত। পাকা আর সেমিপাকা মিলিয়ে তিনটি ভবনের স্কুলটিতে শিক্ষার্থী ২৫০ জন আর ৬ জন শিক্ষক আছেন। রোববার বেলা একটার সময় সরেজমিনে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের মাঠে মহিষ আসতে শুরু করেছে।বিদ্যালয় ভবনের পিলারের সঙ্গে ও মাঠের বিভিন্ন জায়গায় মহিষ বেঁধে রাখা হয়েছে। চলছে কেনা-বেচা। বিদ্যালয়ের বারান্দায় বসেছেন হাটের ইজারাদারের লোকজন। স্বাধীনতা দিবসের কোনো আয়োজন চোখে পড়েনি। বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম বসে ছিলেন। অন্য সব কক্ষ তালাবদ্ধ।প্রধান শিক্ষক বললেন, গুরুত্বপূর্ণ দিবস গুলোতে ঐতিহ্যবাহী এ বিদ্যালয়ে নানা আয়োজন থাকে। কিন্তু এবারের স্বাধীনতা দিবসটা রোববার পড়ায় বিপত্তি বেধেছে। ভাটইয়ে এটা সাপ্তাহিক হাটের দিন। এদিন বিদ্যালয়ের মাঠে মহিষের হাট বসে। এ কারণে তাঁরা স্বাধীনতা দিবস নির্দিষ্ট দিনে উদ্যাপন করতে পারেননি। তবে ২৫ মার্চ ছেলে মেয়েদের দৌড়, লাফসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছিল। রোববার শুধু বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়েছে। চতুর্থ শ্রেনীর কক্ষটি বড় হওয়ায় সেখানে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে শৈলকুপা উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শাহিনুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, বিদ্যালয়ের মাঠে পশুর হাট বসানোর বিষয়টি মোটেও ঠিক নয়। কিন্তু হাট সরানোর বিষয়ে তাঁদের তেমন কিছুই করার নেই। সমস্যা হওয়ায় তাঁরা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে শুধু রোববার সকালে ক্লাস চালুর উদ্যোগ নিতে বলেছেন।বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলছে, প্রতি রোববার এলেই সমস্যাটা মোকাবিলা করতে হয় তাদের। কারণ, কোন মহিষের ‘দৌড়’ কেমন, কেনার আগে সেটা পরখ করে নেওয়া চাই। তাই কেনা-বেচার আগে এই মাঠেই মহিষ তাড়িয়ে নিয়ে বেড়ানো হয়। ফলে রোববার শিশুরা বিদ্যালয়ে এসে তটস্থ থাকে। দুর্ঘটনার আশঙ্কায় দুপুর থেকে তাদের শ্রেনী কক্ষের ভেতরে কার্যত আটকে রাখেন শিক্ষকেরা।প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম বলেন, তিনি প্রায় ৬ বছর হলো এই বিদ্যালয়ে যোগদান করেছেন। এখানে এসেই দেখেন, প্রতি রোববার স্কুল মাঠে মহিষের হাট বসে। খোঁজ নিয়ে জেনেছেন, এটা অনেক পুরোনো হাট। তিনি বেশ কয়েকবার চেষ্টা করেছেন মহিষের হাটটি অন্যত্র সরিয়ে দেওয়ার। কিন্তু নতুন জায়গা না পাওয়ায় সেটা সম্ভব হয়নি।ভাটই হাটের ইজারা দেওয়া হয় শৈলকুপা উপজেলা প্রশাসন থেকে। তবে উপজেলার প্রশাসনই জানে না, এখানে বিদ্যালয়ের মাঠে সাপ্তাহিক মহিষের হাট বসছে। শৈলকুপা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওসমান গণি বলেন, ঘটনাটি খুবই দুঃখ জনক। তিনি বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবেন।

 

সাভারে সন্ত্রাসীদের হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফরহাদ হোসেন সহ দুই জন

মোঃ গোলাম মোস্তফা ,ঢাকাজেলা সংবাদ প্রতিনিধি
সাভারে অপহরণ কারীদের হাত থেকে এক যুবককে উদ্ধার করতে গিয়ে সন্ত্রাসীদের হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন সাভার পৌর সভার ৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফরহাদ হোসেন সহ দুই জন।সকালে সাভার পৌর এলাকার কাতলাপুর মহল্লায় এঘটনা ঘটে।আহতরা জানায় গতকাল রাতে সাভারের রেডিওকলোনী এলাকার ইলেকট্রিক্যাল মিস্ত্রি মোহাম্মদ আলমকে (২৫) অপহরণ করে সাভারের রাজাবাড়ি এলাকায় একটি বাড়িতে নিয়ে তাকে আটক করে রাখেন সন্ত্রাসীরা। পরে সন্ত্রাসীরা মোবাইল ফোনে ওই ইলেকট্রিক্যাল মিস্ত্রির পরিবারের কাছে তিন লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন সন্ত্রাসীরা। এসময় পুলিশকে জানালে অথবা মুক্তিপণের টাকা দিতে দেরি হলে ওই ইলেকট্রিক্যাল মিস্ত্রিকে হত্যার হুমকি দেয় তারা। পরে পরিবারের সদস্যরা কৌশলে অপহরণ কারীদের বলেন আমরা টাকা নিয়ে আসতাছি আপনারা কোথায়। এসময় অপহরণ কারীরা রাজাবাড়ি এলাকার ওই বাড়ির ঠিকানা দিলে ওই ইলেকট্রিক্যাল মিস্ত্রির পরিবারের সদস্যরা সাভার পৌর সভার ৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফরহাদ হোসেনকে নিয়ে ওই যুবককে উদ্ধার করতে গেলে ওই এলাকার চিহিৃত সন্ত্রাসী মুমিন,টিপু,পলাশ ও পিয়াস ৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফরহাদ হোসেনকে (৪২) ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে বাম হাত ভেঙ্গে দেন। এসময় ফরহাদ হোসেনকে বাঁচাতে গেলে সন্ত্রাসীরা আব্দুল হালিম নামের এক যুবককে কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য সাভারের এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। এদিকে সন্ত্রাসীদের হাত থেকে ওই ইলেকট্রিক্যাল মিস্ত্রিকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এদিকে এলাকাবাসীর অভিযোগ ওই এলাকার চার জন চিহিৃত সন্ত্রাসী স্কুল ছাত্র ও গার্মেন্টস শ্রমিকদের অহরণ করে তাদের পরিবারের কাছ থেকে মোটা অংকের মুক্তিপণ আদায় করেন। মুক্তিপণ না দিলে সন্ত্রাসীরা তাদেরকে হত্যা করে লাশ গুম করেন বলে অভিযোগ করেন তারা।
খবর পেয়ে সাভার মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।এবিষয়ে সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান বলেন বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।এঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

 

প্রধান শিক্ষকের প্রহারে শিক্ষার্থী আহত


জুবের সরদার দিগন্ত, দিরাই-শাল্লা (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার তাড়ল ইউনিয়নের উজান ভাউসি সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বিজেন চন্দ্র দাসের উপর পঞ্চম শ্রেনীর এক শিশু শিক্ষার্থীকে মেরে রক্তাক্ত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নির্যাতিত ওই স্কুল ছত্রের পিতা প্রহল্লাদ বৈষ্ণব একটি লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন, তিনি ঘটনার আগের দিন অভিযোক্ত ওই প্রধান শিক্ষকের সাথে শিক্ষকদের সময় মতো স্কুলে আসা নিয়ে আলাপ কালে প্রধান শিক্ষক ক্ষেপে গিয়ে তাকে হুমকি দিয়ে বলেন, তোমার তো সাহস কম নয় আমাকে অনিয়ম শিখাতে এসেছ। আমি তোমাকে দেখে নিব। তিনি বলেন, তার উপর ক্ষেপে গিয়ে ওই বদমিজাজী প্রধান শিক্ষক তার শিশুপুত্রের উপর অমানবিক অত্যাচার করেন। তিনি বলেন, গত ১৯/০৩/২০১৭ ইংরেজী তারিখে তার প্রত্র অহিক বৈষ্ণব (১০) বিদ্যালয়ে গেলে পূর্ব থেকে ক্ষেপে থাকা বিজেন চন্দ্র দাস গাছের ডাল দিয়ে তাকে এলোপাথারী আগাত করতে থাকেন। তার আর্থ চিৎকারে আমরা কয়েক জন সেখানে গিয়ে তাকে ওই উগ্রমিজাজী মাষ্টারের হাত থেকে রক্ষা করি। যদি আমরা সেখানে সময় মতো না যেতাম আমার ছেলেটিকে মনে হয় প্রানেই মেরে পেলতো। শুধু তাই নয় ওই শিক্ষক আমাকে ও আমার পরিবারের লোখদের হুমকি দিয়ে বলেন, আমার পরিবারের লোখদের সুবিধাজনক স্থানে পেলে প্রানে মেরে পেলবেন। তার সাথে আর কথা না বলে ছেলের রক্তাক্ত ও পুলা যকম দেখে দিরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমল্পেক্সে নিয়ে এসে চিকিৎসা প্রধান করান। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক আইন কার হয়েছে যে, স্কুলের শিশুদের সাথে যেন বন্ধু শুলভ আচরন করা হয়। তার পরও ওই শিক্ষক কোন ক্ষমতার বলে কোমলমতি শিশুদরে উপর এভাবে আগাত করতে পারেন, তা আমাদের ঞ্জানের বাহিরে। তিনি বলেন, উক্ত বিষয়টি নিয়ে স্কুল কমিটি ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ আপোশ মিমাংসার চেষ্টা করলে অভিযোক্ত প্রধান শিক্ষক তা না মানাতে বিলম্ভতে হলেও তার উপর অভযোগ করার সিদ্ধান্তা নেই। এবং এই ঘটনার উপযোক্ত তদন্ত সাপেক্ষে উপযোক্ত বিচার চাই।

বড়াইগ্রামে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ফলের আড়তে ডাকাতি, ৩২ লাখ টাকা লুট, আটক এক


প্রতিনিধি বড়াইগ্রাম:
নাটোরের বড়াইগ্রামের আহম্মেদপুর বাজারে শনিবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ফলের আড়তে ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে। ডাকাত দল ৩২ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন ফজল ফল ভান্ডারের ম্যানেজার আমিনুল ইসলাম। জানা যায়, হ্যান্ডকাপ ও পিস্তল সহ সশস্ত্র ১১ জন ব্যক্তি একটি সাদা মাইক্রোবাসে এসে নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয়ে আহম্মেদপুর বাজারে ফজল ফল ভান্ডারে সামনে আসে। এসময় তাদের ৩জন আড়তের ভেতরে প্রবেশ করে ম্যানেজার আমিনুল ইসলামকে মারপিট ও সেখানে থাকা ব্যাপারিদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ক্যাশ ভেঙ্গে ৩২ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। এসময় আবিদ হাসান (২৮) নামে এক ডাকাত মাইক্রোবাসে উঠতে ব্যর্থ হলে লোকজন তাকে ধাওয়া করে আটক করে। পরে গণধোলাই দিয়ে তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। ধৃত আবিদের বাড়ি সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া বেদবাড়ি গ্রামে।এ ব্যাপারে বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহরিয়ার খাঁন জানান, আটককৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে এবং প্রয়োজনীয় তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

উদ্বারকৃত সোনার মূল্য প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকা শাহজালাল বিমানবন্দরে থাই এয়ারওয়েজের বিমান থেকে প্রায় ৭ কেজি ওজনের ৬০টি সোনার বার উদ্বার


এস,এম,মনির হোসেন জীবন : শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা আজ ঢাকা হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ব্যাংকক থেকে আসা থাই এয়ারওয়েজের একটি বিমান থেকে প্রায় ৭ কেজি ওজনের ৬০টি সোনার বার উদ্বার করেছে । আটককৃত সোনার বারের ওজন ৬ কেজি ৯৯০ গ্রাম, যার বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকা।আজ রোববার দুপুর সোয়া ৩টার দিকে থাই এয়ারওয়েজের ইকোনমি ক্লাসের ৫২কে সিটের সিট কভারে ভেতর থেকে সোনার এ বার গুলো উদ্বার করা হয়। শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) ড. মঈনুল খান আজ রোববার বিকেলে ৬০টি সোনার বার আটকের খবরটি নিশ্চিত করেছেন।
শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের ডিজি ড. মঈনুল খান আজ জানান, রোববার দুপুর সোয়া ২টায় ঢাকা হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তজার্তিক বিমানবন্দরে থাই এয়ারওয়েজের (টিজি-৩২১) ফ্লাইটটি এসে অবতরণ করে। টিজি-৩২১ ফ্লাইটটি ব্যাংককের সুবর্ণভূমি এয়ারপোর্ট থেকে গোপন সূত্রে শুল্ক গোয়েন্দা জানতে পারে ওই ফ্লাইটে অবৈধভাবে সোনার একটি চালান ঢাকায় নিয়ে আসা হচেছ। বিমানটি ঢাকায় পৌছার পর শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের গোয়েন্দা কর্মকর্তারা তখন ওই বিমানটি ব্যাপক তল্লাশি চালায়। এক পর্যায়ে ফ্লাইটটির ইকোনমি ক্লাসের ৫২-কে সিটের হেলান দেওয়ার অংশের সিট কভারে ভেতরে বিশেষ ভাবে লুকানো অবস্থায় স্বর্ণের বারগুলো পাওয়া যায়। যার মধ্যে ৬০টি বার রয়েছে। যার ওজন প্রায় ৬ কেজি ৯৯০ গ্রাম। প্রতিটি স্বর্ণের বারের ওজন ১০ তোলা করে।
শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের উপ-পরিচালক এস,এম শামীমুর রহমান আজ সন্ধ্যায় জানান, শুল্ক গোয়েন্দা সূত্রটি আরও জানায়, যে সিট থেকে স্বর্ণের বারগুলো জব্দ করা হয়েছে, সে সিটে কোনো যাত্রী ছিলেন না। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে বিমানে তল্লাশি চালিয়ে প্রথম দফায় একঘণ্টা খুঁজেও স্বর্ণের কোনো হদিস মিলছিলো না। দ্বিতীয় দফায় তল্লাাশি করে সিটের কভার থেকে ওই ৬০টি স্বর্ণের বার পাওয়া যায়।শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের একটি সূত্র আজ জানায়, ফ্লাইটটি ব্যাংকক থেকে ঢাকা এলেও এটি প্রথম ছেড়েছিল তাইওয়ানের তাইপে থেকে, ব্যাংককে ট্রানজিট ছিল।
এঘটনায় শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতর কর্তৃপক্ষ থাই এয়ারওয়েজের কাছে ওই ফ্লাইটে কর্মরত সকলের তালিকা চেয়েছেন। পরবর্তীতে তালিকা অনুযায়ী সকলকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। পরবর্তীতে থাই এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষের সহায়তা নিয়ে প্রকৃত দোষীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে বলে জানা গেছে। আটককৃত সোনা গুলো বর্তমানে কাস্টমস এর হেফাজতে আছে। এরিপোট লেখা পর্যন্ত কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

ভালুকায় চাচা কর্তৃক ভাতিজার সম্পত্তি আত্মসাৎ। বিশ বছর ধরে নির্যাতনের শিকার !

মোঃ আল-আমিন
ভালুকা(ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃ
ময়মনসিংহের ভালুকায় চাচা কর্তৃক ভাতিজা বিশ বছর নির্যাতনের শিকার, ন্যায় বিচার চেয়ে চেয়ারম্যান বরাবর আবেদন করেছেন ভাতিজা। ভালুকা উপজেলার ১১নং রাজৈ ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের পারুলদিয়া গ্রামের, মৃত আব্দুল মান্নান বেপারী (কবিরাজ) এর ছেলে মোঃ মোস্তাফা বেপারী (৪৬) কে তার আপন দুই চাচার নির্মম নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে। নির্যাতিত পরিবার সুত্রে জানা যাই যে, মোঃ হানিছ বেপারী ও মোঃ আব্দুল মোতালেব (পুলিশ) তার ভাতিজা মোঃ মোস্তাফা বেপারী কে টানা বিশ বছর ধরে নিয়মিত ভাবে উৎপীড়িত,লাি ত,করেই যাচ্ছে। মোঃ মোস্তফা বেপরী জানান বিগত বিশ বছর পূর্বে আমার চাচা মোঃ হানিছ বেপারীর কাছ থেকে সাড়ে তিন শতাংশ ভূমি সাব কাবলা খরিদ করিয়া ছিলাম, আমার চাচা অদ্যবদী পর্যন্ত রেজিষ্টি করিয়া দেই নাই, ও মোঃ মোতালেব বেপারী (পুলিশ) এর নিকট আমার পৈত্রিক সম্পাত্তির সকল হিসাব আমার পিতার মৃত্যুর পর তাহার নিকট আমার পৈত্রিক সম্পত্তির হিসাব চাইলে সঠিক হিসাব না দিয়ে তাহার মন গড়া মূখিক হিসাব দিয়ে আসে ,জমির হিসাব চাইতে গেলে আমাকে মিত্যে মামলার ভয় ও প্রান নাশ কররা হুমকি দেন, কিছুদিন পর থেকেই শুরু করেছেন আমার পরিবারের উপর নির্মম নির্যাতন,আমাকে ও আমার পরিবার সদস্যদের প্রানে মেরে ফেলার হুমকি এবং আমার বাড়ীতে আমার কোন স্বজন বেরাতে আসলে হতে হয়তো লাি ত,কিংবা চোর,নয়তো ডাকাত সাজিয়ে পুলিশ দিয়ে গ্রেফতার। এরকম আরো বহু নির্যাতনের শিকার হয়ে আমি, আমার হাতে গড়া বাড়ী ,আমার সন্তান, পৈত্রিক স¤পত্তি,আমার ব্যাবসা ছেরে অন্যত্র এলাকয় চলে যেতে হয়েছিল শুধু পাশুন্ড পশু রুপি আমার চাচাদের ভয়ে । আমার ছেলে মেয়েকেও ছাড়তে হয়েছে তাদের জন্মভুমি, দাদার বাড়ী ছেরে নানার বাড়ীতে হল তাদের ঠিকানা। আমি ও আমার স্ত্রী ১২টি বৎসর কাটিয়েছি গাজীপুর ভাড়া বাড়ীতে,আজ দুই বছর হল বাড়ীতে ফিরিছি,আবার একি রকম শুরু হল আমার উপর নির্মম নির্যাতন, আমার চাচা মোঃ মোতালেব বেপারী (পুলিশ) বিগত ২৭/০৭/২০১৬ ইং তারিখে আমার বাড়ীর দক্ষিন পাশে নদীর পারের জমিতে আমাকে ও আমার পরিবারের সবাইকে বাধা নিষেধ করেন ,আমি ইহার কারন জিজ্ঞাস করিলে, আমার চাচা বলেন জমি তাহার এই বিষয় নিয়া কথা কাটাকাটি হয়লে, আমার চাচাত ভাই মোঃ মাসুদ ও মোঃ মারছেল এবং ভাতিজা মোঃ মিশু মিয়া, দা, লাঠি,নিয়া আমার স্ত্রীর প্রতি উত্তেজিত হইয়া খুন জখম করার জন্য উদ্ধত হয়। তখন আমার স্ত্রী তাহাদের ভয়ে ঘরের ভিতর প্রবেশ করে দরজা আটকিয়ে আতœরক্ষা করেন। বিবাদী গন আমার স্ত্রীকে না পেয়ে আমার ঘরের ইটের ওয়াল বাঙ্গিয়া ফেলে। এবং অশ্লীল বাষায় গাল মন্দ করিয়া বলে আমাদের খুন জখম করিয়া ফেলিবে । স্থানিয় সূত্রে জানা যায় মোঃ হানিছ বেপারী ও মোতালেব বেপারী (পুলিশ) তারা দুই ভাই মিলে ,মৃত মান্নাছ বেপারী (কবিরাজ) এর সাথে বেইমানি করেছেন তাকে জমির ভাগ দেইনি শুধু তাই না তার ছেলে মোঃ মোস্তফা বেপারী কেও অনেক নির্যাতন করেছে তার চাচা মোঃ মোতালেব বেপারী (পুলিশ) শুধূ জমাজমির জেরে, এটার একটা ন্যায় সমাধান হওয়া জরুরী। তাই মোঃ মোস্তফা বেপারী ২৫/০৮/২০১৬ তারিখে ১১নং রাজৈ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল ইসলাম বাদশা সাহেবের বরাবর খরিদকৃত জমি ও পৈত্রিক সম্পত্তি এবং ওয়াল বাঙ্গার ন্যায় বিচার প্রার্থী হয়ে ,একটি লিখিত আবেদন পেশ করেছেন,খূঁজ নিয়ে জানা যায় এখনো বিচার হইনি, ১১নং রাজৈ ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোঃ আরিফ খান চৌধুরী পতিবেদকে বলেন আনুমানিক ৩ মাস পূর্বে ১ম নোটিশ পাঠিয়ে ছিলাম পরে বিবাদীগন ১মাস সময় চেয়ে নিয়েছেন ,পরবর্তিতে নোটিশ এখনো করা হইনি,


সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: এ্যাডভোকেট শেখ মোঃ আব্দুল্লাহ
সম্পাদক-প্রকাশক : শেখ মোঃ তৈয়াবুর রহমান॥

যুগ্ম সম্পাদক: এস এম শাহিদুল আলম॥ সহযোগী সম্পাদক: শেখ মোঃ আরিফ আল আরাফাত
সহ-সম্পাদক: (প্রশাসন) হাজী হাবিবুর রহমান শাহেদ: সহ সম্পাদক: আজমাল মাহমুদ
সম্পাদক কর্তৃক বাড়ী বাড়ী নং- ৫৩/২, ৪র্থ তলা, রাজ-নারায়ন-ধর রোড, কিল্লার মোড় বাজার, লালবাগ, ঢাকা-১২১১
ফোন: ০১৯১৮-২০১৬২৬, ফোন: ০১৭১৫-৯৩৩১৬৮
ই-মেইল- notunvor.news@gmail.com
Designed By Hostlightbd.com
| Cyberboss.org
Translate »