Category: আইন-আদালত

নওগাঁয় পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৩ জামাত নেতা আটক সহ ককটেল ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ


নওগাঁ প্রতিনিধিঃ আসন্ন ২৬শে ফেব্রুয়ারি বগুড়ার সান্তাহারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষে নিরাপত্তা নিশ্চিতের অভিযানে নওগাঁর পুলিশ ৩ জামাত নেতা আটক সহ ককটেল ও দেশিয় অস্ত্র (রামদা) উদ্ধার করেছে। সোমবার রাতে জেলার রাণীনগর উপজেলার ভান্ডারপুর গ্রামের হজরত আলীর ছেলে ইউনিয়ন জামাতের সেকেটারী আব্দুল মতিন (৪৮) কে তার নিজ বাড়ী থেকে ২টি ককটেল ও ২টি দেশিয় অস্ত্র (রামদা) উদ্ধার করে পুলিশ। এছাড়া আত্রাই উপজেলার বান্দাইঘাড়া গ্রামের মৃতঃ আফতাবের ছেলে ছাইদুর রহমান (৪০) এবং মান্দা উপজেলার শীলগ্রাম গ্রামের নূও মোহাম্মাদের ছেলে বেলাল হোসেন (৩৭) কে তার নিজ বাড়ী থেকে আটক করেছে পুলিশ। নওগাঁর পুলিশ সুপার মোজাম্মেল হক বিপিএম পিপিএম, জানান আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি বগুড়ার সান্তাহারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষে নওগাঁয় পুলিশের বিশেষ অভিযানে তাদের আটক করেছে। তিনি আরও জানান, আটক কৃতদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা থাকার কারণে তারা পালাতক ছিল।

জজ সাহেবের সহি-স্বাক্ষরীত জালিয়াতি করে কাগজটি পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে দাখিল

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীর প্রতিবাদে মিথ্যা তদন্ত বিহীন তথ্য ও প্রযুক্তি আইন মামলার জরিত করায় উহা হইতে তদন্তের সহিত অব্যহতি পাওয়ার আবেদন জানান মোসাঃ মাহেনুর বেগম (২৮) পিতা মৃত মজনু তাং, স্বামী- আরিফ হোসেন, সাং শুক্তাগড়, উপজেলা – রাজাপুর, জেলা- ঝালকাঠি। তিনি এক লিখিত বক্তব্যে সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন যে, আমার স্বামী আরিফ হোসেন, পিতা- আঃ আউয়াল ওরফে চুন্নু মাতুব্বর, সাং জগাইরয়াট, থানা-রাজাপুর, জেলাঃ ঝালকাঠী এর সহিত ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক গত ২৭/-৭/২০১৬ইং তারিখে রেজিঃ কৃত বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই। আমার সহিত আরিফ হোসেন এর দীর্ঘ ৫ বছর যাবত ভালবাসার সম্পর্ক ছিল। বিবাহের পর আমার স্বামী আমাকে নিয়া ৪মাস ঘর সংসার করলে এর মধ্যেই ২/৩ বার আমার সাথে মারামারি ও যৌতুক দ্বাবি করে আসছে। বিবাহের পর আমি তাকে আমার জমাকৃত ২,০০,০০০/- (দুই লক্ষ) টাকা দিয়াছিলাম। কিন্তু তিনি কোন কাজকর্ম না করে মাদক ব্যবসা ও মাদক সেবনের সাথে জরিত ছিল। মাদক ব্যবসা ও সেবন বন্ধ করতে আমি তাকে নিষেধ করলে তিনি আমাকে মারপিট করতো এবং বলতো অল্প সময়ের মধ্যেই অনেক টাকার মালিক হয়ে যাবে। এ ব্যপারে আমি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকার গন্যমান্য সহ প্রশাসনের সাথে ও বিষয়টি অবগত করি। এলাকার মাদক নিয়ন্ত্রন করার উদ্যেশ্যে গত ১১/০৬/২০১৬ইং তারিখে ইউনিয়ন পরিষদের মিটিং নং- ৬৪ এ একটি রেজুলেশন তৈরি করে এলাকার দাগী মাদক ব্যাবসায়ীদের নাম প্রকাশ করা হয়। উহার মধ্যে আরিফ হোসেন বিখ্যাত মাদক ব্যাবসায়ী হিসাবে উল্লেখ্য রয়েছে।
গত ৩০/১১/২০১৬ইং তারিখে আমার স্বামী আমাকে মাদক সেবন করে মারপিট করে মাথা ফাটিয়ে দেয় এবং আমার কাছ থেকে আরো টাকা দাবী করে। পরক্ষনে আমি রাজাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন থেকে একটি অভিযোগ দাখিল করি যাহার নং জি.আর ১৭৭/২০১৬ রাজা, অভিযোগ পত্র নং- ০৭, তাং ৩০/০১/২০১৭ইং। আমার ঐ মামলার স্বাক্ষী সহ আমার স্বামীর গ্রামের স্থানীয় জনপ্রতিনিধি গন্যমান্য ব্যক্তি এবং আমার শশুর পক্ষের সাথে দীর্ঘ কাল ধরে শত্রুতা ছিল তাকে ও জরিয়ে মোকাম ঝালকাঠি মানব পাচার অপরাদ দমন ট্রাইবুনাল আদাল হতে ফৌজদারী মিস পিটিশন নং ১৮/২০১৭ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন/২০০৬ সংশোধীত ২০১৩ এর ৫৭ (২) ও ৬৬ (২) ধারায় একটি আদেশ নামায় রাজাপুর থানায় নির্দেশদেয় তদন্তের সহিত অভিযোগ প্রমানীত হলে এফ.আই.আর নেওয়ার নির্দেশ দেয়।
*** কিন্তু দায়রা জজ আদালত ঝালকাঠির সেরেস্তা হতে যে আদেশ নামা মিস পিটিশন নং ১৮/২০১৭এর আনা হয় ্উহাতে উল্লেখ্য রয়েছে যে বাদীর অভিযোগ টি তদন্ত পূর্বক ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেলে এফ.আই.আর রুজুক্রমে তদন্তক্রমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাজাপুর থানাকে নির্দেশ দেওয়া গেল। যাহার স্মারক নং ৩২৮, তাং ০৫/০২/১৭ইং
নালিশি মামলাটি গত ০১/০২/২০১৭ইং তারিখে আদালতে দাখিল করেন। এই মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ দিয়ে আমার নারী শিশু নির্যাতন মামলা নং জি.আর ১৭৭/২০১৬ রাজা কে নিস্পত্তি করার উদেশ্যে আমার মামলায় স্বাক্ষী ও স্থানীয় গন্যমান্য প্রতিনিধিকে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা চালায়। আরো প্রকাশ থাকে যে গত ০৫/০১/২০১৭ইং তারিখে জিডি নং ৬৪২ রাজাপুর থানায় মিস পিটিশন নং- ১৮/২০১৭ইং এর অভিযোগের ২নং আসামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করলে হাহা আদালত থেকে খারিজ হয়ে যায়। বাদীপক্ষ বিজ্ঞ জজ সাহেবের সহি-স্বাক্ষরীত জালিয়াতি করিয়া কাগজটি পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে দাখিল করে।
** কিন্তু পুলিশ সুপারের কর্যালয়ের সিলযুক্ত একাটি একইরুপ আদালতের আদেশ নামায় অনুলিপিতে লেখা বাদীর অভিযোগটি ফৌজদারী কার্যবিধির ১৫৬ (৩) ধার মোতাবেক এফ.আই.আর রুজুক্রমে তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাজাপুর থানাকে নির্দেশ দেওয়া গেল।
অর্থাৎ আদালতের থেকে প্রকৃত আদেশ নামায় যাহা উল্লেখ্য তাহা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের আদেশ নামায় নেই।
এমতাবস্থায় আমার মামলা জি.আর ১৭৭/২০১৬ রাজা এর আসামী আমার স্বামী আরিফ হোসেন ও তার ভাই রফিকুল ইসলাম আমাকে সহ আমার মামলার স্বাক্ষীদের প্রকাশ্যে প্রান নাশের ও মিথ্যা মামলায় জরিত করবে বলে হুমকি দিয়ে থাকেন এবং আরো বলেন আমার দ্বায়েরকৃত মামলাটি ১ মাসের মধ্যে তুলিয়া আনতে হবে।

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে গ্রাম নাহালী মাদ্রাসার সুপারের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ মামলা দায়ের


মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল,টাঙ্গাইল জেলা সংবাদদাতা
ভুয়া ভাউচারের মাধ্যমে মাদ্রাসার বিপুল অংকের টাকা আতœসাত, ভুয়া ছাত্র-ছাত্রী দেখিয়ে অভিভাবক বানিয়ে ও ভুয়া ভোটার তৈরী করে মাদ্রাসা পরিচালনা পরিষদের নির্বাচন, শিক্ষক নিয়োগে অনিয়ম ও দুর্নীতিসহ নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে অধ্যক্ষকে (সুপারকে) মো. আনিছুর রহসমান নামে এক মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে।দীর্ঘ দিন ধরে অনিয়ম ও দুর্নীতির কারনে মাদ্রাসায় শিক্ষার পরিবেশ অনিশ্চিত হয়ে পরেছে।অধ্যক্ষকে(সুপারকে) অপসারণসহ দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবীতে মামলা দায়ের করেছেন অভিভাবক ও ম্যানেজিং কমিটির কয়েকজন সদস্য।ঘটনার পর এলাকায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে।টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার ১ নং মহেড়া ইউনিয়নের গ্রাম নাহালি দাখিল মাদ্রাসায় এ অনিয়ম ও দুর্নীতির ঘটনা ঘটেছে।আজ রবিবার মামলার বাদী, ভুক্তভোগী অভিভাবক, ছাত্র-ছাত্রী ও এলাকাবাসির সঙ্গে কথা বলে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।
অনুসন্ধানে এবং ভুক্তভোগিদের মধ্যে মাসুদুর রহমান ও আলতাব হোসেনসহ অনেকেই অভিযোগ করেন,অধ্যক্ষ মো. আনিছুর রহমান রহমান এই মাদ্রাসায় যোগদানের পর থেকেই নিজের প্রভাব বিস্তার করে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি করে আসছে।কেউ তার অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রতিবাদ করতে গেলেই তিনি মামলাসহ নানা ভয়ভিতি দেখিয়ে আসছে।মামলার বাদী তোতা মিয়া ও ভুক্তভোগি মাসুদুর রহমান ও আলতাব হোসেন অভিযোগ করেন,তার একক ক্ষমতা বলে ভুয়া ভাউচার দেখিয়ে মাদ্রাসার বিপুল অংকের টাকা আতœসাত, ভুয়া ছাত্র-ছাত্রী দেখিয়ে অভিভাবক বানিয়ে ভুয়া ভোটার তৈরী করে নিজের পছন্দমত মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটি গঠন, শিক্ষক নিয়োগে অনিয়ম দুর্নীতিসহ নানা অনিয়ম করে আসছে।অধ্যক্ষ ও অভিভাবকসহ এলাকাবাসির মধ্যে মামলা ও গ্র“পিং হওয়ায় মাদ্রাসায় ছাত্র-ছাত্রী শুন্যের কোঠায় নেমে এসেছে এবং শিক্ষা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পরেছে।মাদ্রাসায় শিক্ষার পরিবেশ সুষ্ঠু রাখতে এবং অধ্যক্ষকে অপসারণসহ দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী জানিয়ে এ ব্যাপারে তোতা মিয়া বাদী হয়ে টাঙ্গাইল কোর্টে মামলা দায়ের করেছেন।এ মামলা হওয়ার পর মাদ্রাসার পরিবেশ আরও অবনতির দিকে যাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এ ব্যাপারে মাদ্রাসার সুপার (অধ্যক্ষ) মো. আনিছুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিভিন্ন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন,একটি পক্ষ আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা ও সাজানো মামলা দিয়ে আমাকে নানা ভাবে হয়রানী করছে।
মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেনের সঙ্গে বিস্তার জানার জন্য যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইসরাত সাদমীন বলেন,যেহেতু বিষয়টি নিয়ে কোর্টে মামলা হয়েছে তার পরও শিক্ষার পরিবেশ সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার স্বার্থে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ধামরাইয়ে স্ত্রী পোশাক শ্রমিক শাবনাজকে (১৮) জবাই করে হত্যা


মোঃ গোলাম মোস্তফা, ঢাকা জেলা প্রতিনিধি
ঢাকার ধামরাইয়ে পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রী পোশাক শ্রমিক শাবনাজকে (১৮) জবাই করে হত্যা করেছে পাষন্ড স্বামী।
গতকাল রাতে ধামরাইয়ের কালামপুর এলাকায় নিজ বাড়িতে এঘটনা ঘটে।এলাকাবাসী জানায় পারিবারিক কলহের জের ধরে গত কয়েকদিন ধরে স্ত্রী পোশাক শ্রমিক শাবনাজের সাথে ঝগড়া চলে আসছিলো স্বামী লিটন মিয়ার সাথে। পরে গতকাল রাতে ঝগড়ার এক পর্যায়ে স্ত্রীকে নিজ ঘরে কুপিয়ে ও জবাই করে হত্যা করে পাষন্ড স্বামী লিটন। এঘটনার পর থেকে ওই ঘাতক স্বামী পলাতক রয়েছে। পরে সকালে পুলিশ খবর পেয়ে ওই পোশাক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।
নিহত ওই পোশাক শ্রমিকের আহাদ নামের চার বছরের এক শিশু সন্তান রয়েছে।এবিষয়ে ধামরাই থানার (ওসি) তদন্ত দীপক চন্দ্র সাহা বলেন ওই পোশাক শ্রমিকের স্বামীকে আটক করার জন্য পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে।এঘটনায় ধামরাই থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

৩৯টি মামলার পলাতক আসামী সিলেট মহানগর শিবিরের সাবেক সভাপতি সুনামগঞ্জে.গ্রেফতার

আব্দুল বাছির সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি | সিলেট মহানগর শিবিরের সাবেক সভাপতি মাহমুদুর রহমান দেলোয়ারকে গ্রেফতার করেছে সুনামগঞ্জ সদড় মডেল থানা পুলিশ।
সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হারুন অর রশীদ চৌধুরী গোপন সংবাদের বিত্তিতে শহড়ের ষোলঘর পয়েন্ট থেকে শুক্রুবার রাতে,এস আই ইমতিয়াজ সরকার,এ এস আই আক্তারুজ্জামান,এ এস আই হান্নান ও সঙ্গিয় ফোর্স সহ অভিযান চালিয়ে নাশকতা সহ ৩৯ মামলার পলাতক আসামি মাহমুদুর রহমান দেলোয়ার কে গ্রেফতার করা হয়। শনিবার তাকে কোর্টের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরন করা হয়।মাহমুদুর রহমান দেলোয়ার, দীর্ঘদিন দরে ৩৯ টি ওয়ারেন্ট নিয়ে পলাতক ছিল।

ঢাকা আরিচা মহাসড়কের সাভারের গেন্ডা বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় গার্মেন্টস শ্রমিকবাহী মিনি বাস উল্টে এক জন নিহত ও আহত হয়েছে অন্তত ২০ জন পোশাক শ্রমিক


গোলাম মোস্তফা,সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি ঃ
সাভারে গার্মেন্টস শ্রমিকবাহী মিনি বাস উল্টে এক জন নিহত হয়েছে। এসময় আহত হয়েছে অন্তত ২০ জন পোশাক শ্রমিক। রবিবার সকালে ঢাকা আরিচা মহাসড়কের সাভারের গেন্ডা বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় এঘটনা ঘটে।পুলিশ জানায় সকালে সাভারের রেডিওকলোনী এলাকা থেকে গার্মেন্টস শ্রমিকদের নিয়ে একটি মিনি বাস উলাইল এলাকায় আল মুসলিম গার্মেন্টস এ যাচ্ছিলো। পরে মিনি বাসটি ঢাকা আরিচা মহাসড়কের গেন্ডা এলাকায় পৌছলে চাকা নষ্ট হয়ে মহাসড়কের উপর উল্টে যায়। এসময় ঘটনাস্থলেই ওই মিনি বাসের হেলপার মারা যায়। আর আহত হয় অন্তত ২০ জন পোশাক শ্রমিক। পরে খবর পেয়ে পুলিশ আহতদের উদ্ধার করে সাভারের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করে। নিহত ওই যুবকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ থানায় নিয়ে যায়। প্রাথমিক ভাবে নিহত ওই যুবকের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।বিষয়টি নিশিচত করেছেন সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান।

ঝিনাইদহ এলজিইডির ল্যাব ট্যাকনিশিয়ান প্রহৃত

রিপোর্টার ঝিনাইদহঃ
ঝিনাইদহ এলজিইডির ল্যাব ট্যাকনিশিয়ান অশান্ত কুমার ঠিকাদারের হাতে প্রহৃত হয়েছেন। শুক্রবার দুপুরে জেলার শৈলকুপা উপজোর হড়রা সাইডে তাকে মারধর করা হয়। ঝিনাইদহ এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল মালেক, সহকারী প্রকৌশলী মনোয়ার উদ্দীন ও উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল মান্নানের সামনেই তাদের অধীনস্ত কর্মচারীকে লাঞ্চিত করা হয়। এলজিইডির ল্যাব ট্যাকনিশিয়ান অশান্ত কুমার জানান, প্রায় চার কোটির বেশি টাকা ব্যায়ে হড়রা গ্রামে নদীর উপর ব্রীজ নির্মান কাজ চলছে। সুরমা এন্টার প্রাইজের নামে ঝিনাইদহের একজন কিাদার কাজটি করছেন। তিনি আরো জানান, নির্মান কাজের ত্রুটি নিয়ে কথা বলার সময় ঠিকাদার ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে লাঞ্চিত করেন। এ বিষয়ে শৈলকুপা থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। শৈলকুপা থানার ওসি তরিকুল ইসলাম জানান, জিডির জন্য দরখাস্ত দেওয়া হয়েছে। এখনো এন্ট্রি হয়নি, তবে হবে। তিনি বলেন, সিমেন্ট বেশি কম দেওয়া নিয়ে লেবারদের সাথে অফিসের লোকজনের তর্ক বিতর্ক হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে কথা বলার জন্য ঝিনাইদহ এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল মালেকের সাথে একাধিকবার মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে ঠিকাদারতের একটি সুত্র জানায়, ঝিনাইদহ এলজিইডির ল্যাব ট্যাকনিশিয়ান অশান্ত কুমার টাকা ছাড়া ভাল কোন রিপোর্ট দেন না। বিশেষ করে নুতন রাস্তা বা ব্রীজ নির্মান প্রকল্প থেকে তিনি কাড়ি কাড়ি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এ নিয়ে জেলার ঠিকাদারদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। ল্যাব ট্যাকনিশিয়ান অশান্ত কুমার অবশ্য জানিয়েছেন, ঠিকাদারদের এই অভিযোগ সত্য নয়।

 

বাংলাদেশ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কুটনীতিকদের মিয়ানমারের পরিস্থিতি বর্ণনা করেন

ঢাকা, 05 ফেব্রুয়ারি 2017: পররাষ্ট্রমন্ত্রী জনাব একটি এইচ মাহমুদ আলী এমপি, আজ রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় মিয়ানমারের শরণার্থী ও অনথিভুক্ত মিয়ানমারের নাগরিকদের পরিস্থিতির উপর কূটনৈতিক সম্প্রদায়ের সদস্যদের কাছে তুলে ধরেন. প্রায় 60 (ষাট) রাষ্ট্রদূতরা / হাই কমিশনার / মিশনসমূহের প্রধানগণ / UNRC কার্যালয়, আইওএম, ইউএনএইচসিআর এবং অন্যান্য জাতিসংঘের সংস্থা থেকে ঢাকার বিভিন্ন কূটনৈতিক মিশন সেইসাথে প্রতিনিধি সম্মেলনে উপস্থিত হন. ব্রিফিং এছাড়াও উপদেষ্টা দ্বারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক বিষয়ক পররাষ্ট্র মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, এবং প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র সচিব প্রমুখ graced ছিল.
ব্রিফিংয়েও মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ধাপের কূটনৈতিক সম্প্রদায় অবহিত করেন যে, বাংলাদেশ সরকার সামনাসামনি মিয়ানমারের শরণার্থী ও অনথিভুক্ত মিয়ানমারের নাগরিকদের বাংলাদেশে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে নিপীড়ন এবং সাম্প্রদায়িক সহিংসতা থেকে পালিয়ে যাওয়ার প্রবেশ গ্রহণ করেছে . এই বিপুল জনসংখ্যার সংখ্যায়ন বেশি 400,000 (সহ সদ্য 69.000 আগত) দুই নিবন্ধিত ক্যাম্প এবং অস্থায়ী বসতি কক্সবাজারে প্রধানত বসবাস করছেন. তিনি একটি চুক্তি 1991-92 সময় নেননি যা তিনি গভীরভাবে তার পদসামর্থ্যে জড়িত ছিল মাধ্যমে প্রায় 236.599 মায়ানমার শরণার্থীদের সফল প্রত্যাবাসন সম্পর্কে উল্লেখ করা হয়েছে.
পররাষ্ট্রমন্ত্রী জোর দিয়ে বলেন, কক্সবাজার জেলার মায়ানমার নাগরিকদের সংখ্যক উপস্থিতি শুধুমাত্র কর্তৃপক্ষের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে তাদের মানবিক সহায়তা পরিচালনা করতে কিছু এমনিতেই সৃষ্টি করেননি বরং উপর বিরূপ প্রভাব একটি সংখ্যা সৃষ্টি সার্বিক আর্থ-সামাজিক, রাজনৈতিক, কক্সবাজারের, ডেমোগ্রাফিক পরিবেশগত এবং মানবিক ও নিরাপত্তা পরিস্থিতি এবং সংলগ্ন জেলায় এবং নেতিবাচক ইকো পর্যটন সম্ভাবনাকে প্রভাবিত. এই শহরের জনসংখ্যার প্রবন প্রকৃতি তুলে ধরে তিনি আরো বলেন যে নেটওয়ার্ক মানব পাচার ও চেতনানাশক ওষুধের চোরাচালান উদ্দেশ্যে এই এলাকায় আবির্ভূত হয়েছে.
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্যাখ্যা করেছেন যে যেহেতু মিয়ানমারের শরণার্থী এবং অনথিভুক্ত মিয়ানমারের নাগরিকদের জন্য কক্সবাজার জেলায় বিদ্যমান আবাসন ব্যবস্থা ইতিমধ্যে ওভার প্রসারিত হয়, নতুন আগমন জন্য আশ্রয়ের ব্যবস্থা কর্তৃপক্ষের জন্য একটি নতুন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে. এই অবস্থায়, যাতে মিয়ানমার নাগরিকদের মানবিক সহায়তা নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের Thengar চর, একটি দ্বীপ বঙ্গোপসাগরে হাতিয়া দ্বীপ পাশে এই জনসংখ্যা স্থানান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে. তিনি আশা প্রকাশ করেন যে অনথিভুক্ত মিয়ানমারের নাগরিকসহ মানবিক সহায়তা ভাল এক্সেস আছে মায়ানমার শরণার্থীদের সাহায্য করবে. পররাষ্ট্রমন্ত্রী অবহিত অর্ডার জায়গা বাসযোগ্য করতে হবে, সরকারি আশ্রয়, স্কুল, হাসপাতাল / স্বাস্থ্য কেন্দ্র, মসজিদ, রাস্তাঘাট ইত্যাদি এবং তিনি যে স্থানান্তরের সঞ্চালিত হবে যোগ উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয় পরে শুধুমাত্র সহ প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণের পরিকল্পনা করে . তিনি আশা প্রকাশ করেন যে, তিনি কূটনৈতিক সম্প্রদায় নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য জায়গা দেখার জন্য একবার অবকাঠামো জায়গা হয় সক্ষম হবে.
এই প্রসঙ্গে তিনি দ্বিপাক্ষিক জাতিসংঘ ও অন্যান্য আন্তর্জাতিক অংশীদারদের অনুরোধ দ্বীপ উন্নয়নশীল এবং তাদের বসবাসের নতুন জায়গা বাংলাদেশে বসবাসকারী মিয়ানমারের নাগরিকদের পরিবহনের সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে এই স্থানান্তরের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে তাদের সমর্থন রেন্ডার. তিনি আরো উল্লেখ করেন, যখন এই মায়ানমার শরণার্থীদের জন্য একটি অস্থায়ী ব্যবস্থা থাকে, বাংলাদেশে তাদের ঘরবাড়ি মিয়ানমারে ফিরে এই জনসংখ্যার প্রত্যাবাসন জন্য অর্থপূর্ণ পদক্ষেপ নিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের চাই.
কূটনৈতিক কোরের ডিন ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত, মার্কিন রাষ্ট্রদূত, সৌদি রাষ্ট্রদূত UNRC অত্যন্ত কয়েক দশক ধরে এই জনসংখ্যা হোস্টিং এবং তাদের প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তা দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকার ও জনগণের প্রশংসা করেন. সৌদি রাষ্ট্রদূত বিশেষ করে সৌদি আরবে মায়ানমার জনসংখ্যার উপস্থিতি উল্লেখ এবং স্পষ্টভাবে বাংলাদেশে তার সরকারের সমর্থন বিবৃত. সাধারণভাবে কূটনৈতিক সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিরা সরকার স্থানান্তরের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন এবং যখন এটি চূড়ান্ত করা হয় সাহায্য করতে তাদের প্রস্তুতি প্রকাশ. তারা তাদের আশা এই এই জনসংখ্যার বসবাস অবস্থায় উন্নতি আনব প্রকাশ. উপরন্তু প্রতিনিধিদের স্বীকৃত যে চূড়ান্ত সমাধান তাদের মাতৃভূমিতে মায়ানমার থেকে এই শরণার্থীদের প্রত্যাবাসন এই ব্যবস্থার সবচেয়ে গুরত্বপূর্ণ এবং এই ব্যাপারে তাদের পূর্ণ সমর্থন আশ্বাস দেন.
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বৈঠকে তাদের উপস্থিতি জন্য কূটনৈতিক সম্প্রদায় ধন্যবাদ জানান এবং তাদের এই বিষয়ে সব ভবিষ্যৎ উন্নয়ন পাশাপাশি চলার আশ্বাস দেন.

বিনিয়োগ বাড়াতে কিছু আইন সংশোধন প্রয়োজন — আইনমন্ত্রী


ঢাকা, ২০ মাঘ (২ ফেব্রুয়ারি) :
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, কিছু আইন আছে যেগুলো বিনিয়োগের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। দেশে বিনিয়োগ বাড়াতে ওইসব আইনের পরিবর্তন, পরিবর্ধন ও সংশোধন প্রয়োজন। তিনি আজ সচিবালয়ে নিজ দফতরে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী আমিনুল ইসলামের সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের একথা জানান।
তিনি বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত দেশে পরিণত করতে হলে বিনিয়োগ বৃদ্ধির কোন বিকল্প নেই। কিন্তু কিছু আইনগত জটিলতায় বিনিয়োগ বিলম্বিত হচ্ছে। বিনিয়োগ ত্বরান্বিত করতে আন্তর্জাতিকমানের ইনভেস্টমেন্ট ক্লাইমেট প্রয়োজন। সে জন্যই চার-পাঁচটি আইন সংশোধন ও পরিমার্জনের বিষয়টি তুলে ধরেছেন বিডার চেয়ারম্যান। আমরা এটাকে গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছি।আইনমন্ত্রী বলেন, কাস্টমস অ্যাক্ট হয়েছিল ১৯৬৯ সালে, এখন নতুন করে কাস্টমস অ্যাক্ট হবে। কোম্পানিজ অ্যাক্টের কিছু কিছু ধারা পরিবর্তন, পরিবর্ধন ও সংশোধনের প্রয়োজন। কন্ট্রাক্ট অ্যাক্টটা ভালো কিন্তু এটাকে যুগোপযোগী করতে হবে। সেগুলো আমরা দেখব।তিনি বলেন, যে সব আইন সংশোধন ও পরিমার্জনের কথা ভাবা হচ্ছে সেগুলো হলো- কাস্টমস অ্যাক্ট, কোম্পানিজ অ্যাক্ট, কন্ট্রাক্ট অ্যাক্ট, আরবিট্রেশন অ্যাক্ট ও ইনসলভেন্সি অ্যাক্ট।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিনিয়োগ বাড়াতে এখনই নতুন আইন প্রয়োজন হবে না। পুরনো আইনগুলো সংশোধন করলেই চলবে। তিনি জানান, আগামী বাজেট অধিবেশনের আগে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য সংসদে আইন পাসের জন্য একটি অধিবেশন বসবে। এ অধিবেশনেই বিষয়টি উত্থাপিত হতে পারে। তবে তিনি বলেন, কিছু পরিবর্তন এখনই হবে। আর কিছু পরিবর্তন হবে ধীরে ধীরে।

ফুলবাড়ীয়ায় ১৩ জন গ্রেফতার

ফুলবাড়ীয়া(ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি ঃ ফুলবাড়ীয়া থানা পুলিশ মাদক ব্যাবসায়ীসহ বিভিন্ন মামলায় ১৩ জন আসামীকে গ্রেফতার করেছে। গতকাল শনিবার গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করে।গ্রেফতারকৃতরা হলো মাদক ব্যবসায়ী গোলাম কিবরিয়া বাবু (২৬), শ্যামল ঋষি (৪৫), দেলোয়ার হোসেন (১৮), আব্দুল মজিদ (৩৫), হযরত আলী (২৪), ইলিয়াস (২০), হেলাল উদ্দিন (২৪), জমির আলী (২৬), ইব্রাহীম (২৪), আশরাফ আলী (২০), বাবুল চন্দ্র দাস (১৯), ফখরুল ইসলাম (২০)। পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল খায়ের জানান, নাওগাঁও, কালাদহ ও বালিয়ান ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত আসামীকে আটক করা হয়।গ্রেফতারকৃতদের গতকাল রবিবার দুপুর ২টার দিকে ময়মনসিংহ জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।অফিসার ইনচার্জ রিফাত খান রাজিব জানান, অভিযানটি চলমান থাকবে। আমরা প্রতিরাতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করছি।


সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: এ্যাডভোকেট শেখ মোঃ আব্দুল্লাহ
সম্পাদক-প্রকাশক : শেখ মোঃ তৈয়াবুর রহমান॥

যুগ্ম সম্পাদক: এস এম শাহিদুল আলম॥ সহযোগী সম্পাদক: শেখ মোঃ আরিফ আল আরাফাত
সহ-সম্পাদক: (প্রশাসন) হাজী হাবিবুর রহমান শাহেদ: সহ সম্পাদক: আজমাল মাহমুদ
সম্পাদক কর্তৃক বাড়ী বাড়ী নং- ৫৩/২, ৪র্থ তলা, রাজ-নারায়ন-ধর রোড, কিল্লার মোড় বাজার, লালবাগ, ঢাকা-১২১১
ফোন: ০১৯১৮-২০১৬২৬, ফোন: ০১৭১৫-৯৩৩১৬৮
ই-মেইল- notunvor.news@gmail.com
Designed By Hostlightbd.com
| Cyberboss.org
Translate »