Category: ভিতরের পাতা

পীরগঞ্জে বন্যার্তদের মাঝে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি সরকার বন্যার্তদের পাশে আছে

মামুনুররশিদ মেরাজুল, পীরগঞ্জ (রংপুর) থেকে ঃ
প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যকে উদ্ধৃত করে জাতীয় সংসদের স্পিকার ও রংপুর-৬ পীরগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, সরকার বন্যার্তদের পাশে আছে। কোন লোকই খাদ্যের অভাবে কষ্ট পাবে না। বন্যার ব্যাপারে আমরা প্রয়োজনীয় সব রকমের ব্যবস্থা নিয়েছি। বন্যার শুরুতেই পীরগঞ্জে ৫০ মে. টন চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। আজও ১’শ মে. টন চাল দেয়া হচ্ছে। গতকাল সোমবার দুপুরে উপজেলার কাবিলপুর ইউনিয়নের লালদীঘির মেলা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে হাজারো বন্যার্তের মাঝে ত্রাণ ও কৃষি উপকরণ বিতরন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি ওই কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, বন্যায় রাস্তা-ঘাট, প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। আমরা সেগুলো সংস্কারে উদ্যোগ নিয়েছি। পীরগঞ্জের কাবিলপুর, চতরা, চৈত্রকোল ও টুকুরিয়া ইউনিয়নে বন্যায় বেশী ক্ষতি হয়েছে। ওই অনুষ্ঠানে কাবিলপুর ইউপি আ’লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম বকুলের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুজব্জামান, জেলা পরিষদের প্রশাসক সাফিয়া খানম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোনায়েম সরকার মানু, উপজেলা আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এ্যাড. আজিজুর রহমান রাঙ্গা, ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি জানান, কাবিলপুরে বন্যায় ৩’শ ২৫ জনকে ঘর মেরামতের জন্য ৫ লাখ টাকা, ২ হাজার বন্যার্তের মাঝে ২০ কেজি করে চাল দেয়া হলো। এরপর তিনি চতরা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ত্রান বিতরন করেন। এতে গোলাম হোসেনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, চতরা ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক শাহীন, ওই ইউপি আ’লীগের সম্পাদক রেজওয়ানুল হক ননতু।
এর আগে সকাল ১০ টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে উপজেলা সেলাই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও উপজেলা পরিষদ অডিটরিয়াম হলে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধের মাধ্যমে মাতৃ মৃত্যু হ্রাসকরণ বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধন করেন। ওই অনুষ্ঠানে জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মু. আব্দুর রউফ হাওলাদারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, ইউএনএফপিএ’র কান্ট্রি ডিরেক্টর ইউরোকাতো, সাবেক স্বাস্থ্য মন্ত্রী আ.ফ.ম রুহুল হক এমপি, ঢাকা-৪ আসনের এমপি সানজিদা খানম, সংরক্ষিত আসনের এমপি সেলিনা বেগম, সংসদ সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব আ.ই.ম গোলাম কিবরিয়া, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, পীরগঞ্জ পৌর মেয়র তাজিমুল ইসলাম শামীম, জেলা আ’লীগ নেতা একেএম ছায়াদত হোসেন বকুল, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান রনি প্রমুখ। গতকাল তিনি বিমানযোগে সৈয়দপুরে আসেন এবং বিমানযোগেই ঢাকা ফিরেন।

নোয়াখালীতে পুলিশের সাথে বন্ধুকযুদ্ধে নিহত আলমের পক্ষে অপপ্রচারের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ
নোয়াখালীর আলাইয়ারপুর ইউনিয়ন যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক মোঃ আলম পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার ঘঠনায় আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।আজ দুপুর ১টায় আলাইয়ারপুর ইউনিয়নের যুগিতোলা বাজারে ঘন্টাব্যাপি এই মানবন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়।মানববন্ধনে এলাকার সচেতন নাগরিক, স্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান, ব্যবসায়ী, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সহ বিভিন্নস্তরের মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
মানববন্ধনে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা মাছ রহিম বলেন, আলম কখনো বিএনপি নেতা ছিলো না, সে একজন ডাকাত ছিলো। বিএনপির কিছু নেতা তাকে দিয়ে আওয়ামীলীগকে দমাই রাখতো। তাই তাকে এখন যুবদলের নেতা বলে দাবী করা হচ্ছে। তার ভয়ে এলাকার কেউ মামলা করতে সাহস পায় নি। প্রশাসনের হাতে তার মৃত্যুতে আমরা এলাকাবাসী খুশি। তবে কিছু মানুষ সংবাদ সম্মেলন করে আলমকে ভালো সাজানোর চেষ্টা করতেছে। আমরা এই অপপ্রচারের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করছি।
উল্লেখ্যঃ গত ২৪শে আগস্ট গভীর রাতে আলাইয়াপুর ইউনিয়নে পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মোঃ আলম নিহত হয়।

বিমানবন্দরে প্রায় ৩ কেটি স্বর্ন আটক

এস,এম মনির হোসেন জীবন : ঢাকা হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ফ্লাই দুবাই এয়ারলাইন্স বিমানের ২৪/এফ নম্বরের সিট কাভার এর পেছন থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ২ কেজি ৫৫২ গ্রাম ওজনের ২২টি সোনার বার জব্দ করেছে বিমানবন্দর কাস্টমস হাউজের প্রিভেনটিভ টিম কর্তৃপক্ষ। প্রতিটি বারের ওজন ১০ তোলা করে। জব্দ করা সোনার বার গুলো হলুদ রংয়ের স্কচটেপ দিয়ে মোড়ানো ছিল। উদ্বার হওয়া সোনার বাজার মূল্য প্রায় ১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা।
আজ সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিমানবন্দরের ফ্লাই দুবাই এয়ারলাইন্স এমজেড-৫৮৩ নম্বর বিমানের ২৪/এফ নম্বরের সিট থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ২২টি সোনার বার উদ্বার করা হয়।বিমানবন্দর কাস্টমস হাউজের প্রিভেনটিভ টিমের সহকারী কমিশনার মো: সাইদুল ইসলাম আজ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
বিমানবন্দর কাস্টমস হাউজের প্রিভেনটিভ টিমের সহকারী কমিশনার মো: সাইদুল ইসলাম আজ জানান, আজ সোমবার বেলা ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে ফ্লাই দুবাই এয়ারওয়েজের (এমজেড-৫৮৩) নম্বরের বিমানটি ঢাকা হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌছায়। বিমানবন্দর কাস্টমস হাউজের প্রিভেনটিভ টিমের সদস্যরা গোপনে খবর পায় যে,উক্ত বিমানে করে সোনার একটি চালান ঢাকায় এসেছে। তখন কাস্টমস হাউজের প্রিভেটিভ টিমের সদস্যরা সোনার চালানটি ধরার জন্য বিমানবন্দরের গুরুত্বপূর্ন স্থান গুলোতে অবস্থান নেয়। ওই বিমানে সকল যাত্রীরা বিমান থেকে একে একে নেমে যাওয়ার পর পুরো বিমানটিতে কাস্টমস হাউজের প্রিভেনটিভ টিমের সদস্যরা সোনার চালানটি ধরার জন্য দফায় দফায় ঝটিকা অভিযান চালায়। অভিযানের এক পর্যায়ে তারা ফ্লাই দুবাই এয়ারলাইন্স বিমানের ২৪/এফ নম্বরের সিটের পেছন থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় হলুদ রংয়ের স্কচটেপ দিয়ে মোড়ানো ২ কেজি ৫৫২ গ্রাম ওজনের ২২টি সোনার বার পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্বার করেন।
সহকারী কমিশনার সাইদুল ইসলাম আজ আর ও জানান, ফ্লাই দুবাই এয়ারলাইন্স বিমানের ভেতর থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ২ কেজি ২ কেজি ৫৫২ গ্রাম সোনা উদ্বার করা হয়। যার মধ্যে ১০ তোলা ওজনের মোট ২২টি বার রয়েছে। যার মূল্য প্রায় ১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। জব্দ কারা সোনার বার গুলো কাস্টম এর নিকট জমা আছে। এবিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন আছে।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

মুহাম্মদ আতিকুর রহমান (আতিক), গাজীপুর জেলা প্রতিনিধি ঃ
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির অর্ধ-বার্ষিকী সভা ২৭ আগস্ট রবিবার সকালে অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র অধ্যাপক এম.এ মান্নান।
অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কে.এম. রাহাতুল ইসলাম, সচিব মোঃ আসলাম হোসেন, ৫৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ সেলিম হোসেন, ১০,১১ ও ১২ নং ওয়ার্ড মহিলা কাউন্সিলর শাহানাজ পারভীন প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলরসহ গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির অন্যান্য সদস্যরা।
সভায় কেয়ার বাংলাদেশের সিনিয়র টেকনিক্যাল ম্যানেজার-রেজিলিয়েন্স বিশ্বজিৎ কুমার রায় মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরের মাদ্যমে গাজীপুরে বাস্তবায়নাধীন “বিল্ডিং রেজিলিয়েন্স অব দ্যা আরবান পুওর” প্রকল্পের কার্যক্রম তুলে ধরে বলেন, বিগত প্রায় আড়াই বছর ধরে কেয়ার বাংলাদেশ ও এর সহযোগী সংস্থা ভার্ক গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন এলাকায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা নিয়ে কাজ করছে।
মেয়র অধ্যাপক এম.এ মান্নান “বিল্ডিং রেজিলিয়েন্স অব দ্যা আরবান পুওর” প্রকল্পের আওতাধীন দুটি ওয়ার্ডের কাউন্সিলরদের কাছে প্রকল্পের মাধ্যমে এলাকার অবস্থার খোঁজ খবর নেন।
সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কে.এম. রাহাতুল ইসলাম বলেন, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৫৭টা ওয়ার্ডে ওয়ার্ড দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠিত হয়েছে। সেগুলোকে শক্তিশালী করতে হবে এবং তাদের দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে।
কাউন্সিলর মোঃ সেলিম হোসেন ও মহিলা কাউন্সিলর শাহানাজ পারভীন তাদের এলাকার কথা তুলে ধরেন এবং “বিল্ডিং রেজিলিয়েন্স অব দ্যা আরবান পুওর” প্রকল্পের পক্ষ হতে প্রাপ্ত সহযোগিতার কথা স্বীকার করেন।

চন্ডিপুর বাজার ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন হরিণাকুন্ডুকে ৪-০ গোলে হারিয়ে কোটচাঁদপুরের শুভ সুচনা

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ ঝিনাইদহ সদর উপজেলার চন্ডিপুর বাজার ফুটবল টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন করা হয়েছে। শুক্রবার বিকালে গান্না ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ নাছির উদ্দীন মালিথা প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। ঝিনাইদহ প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক আসিফ ইকবাল কাজল কবুতর উড়িয়ে খেলার উদ্বোধনী ঘোষনা করেন। এ সময় আয়োজকদের পক্ষে তোফাজ্জেল হোসেন বিশ্বাস, কামরুজ্জামান মীর, আব্দুল মালেক, রায়হান উদ্দীন মালিথা, সারোয়ার হোসেন, মুন্না, জাহাঙ্গীর হোসেন জোয়ারদারসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। চন্ডিপুর বাজার ফ্রেন্ডস স্পোটিং ক্লাবের সৌজন্যে ঢাকাস্থ ঝিনাইদহ ট্রান্সপোর্ট এর সত্বাধীকারী জাহিদুল ইসলাম এই টুর্ণামেন্টের আয়োজন করেন। প্রতিযোগিতায় ঝিনাইদহ জেলার ৮টি দল অংশ গ্রহন করছেন। শুক্রবার উদ্বোধনী দিনে হরিণাকুন্ডু রাজ ডেন্টাল কেয়ার যুব সংঘ একাদশ ও কোটচাঁদপুরের খেলোয়াড় কল্যান সমিতি একাদশ একেঅপরের মোকাবিলা করে। খেলায় কোটচাঁদপুর খেলোয়াড় কল্যান সমিতি একাদশ একচেটিয়া প্রভাব বিস্তার করে হরিণাকুন্ডুকে ৪-০ গোলে বিধ্বস্ত করে। কোটচাঁদপুরের পক্ষে সাব্বির ২টি, সুমন ১টি ও তাইবু ১টি করে গোল করে দলকে বিপুল গোলের ব্যবধানে জয়ী করতে সমর্থ হন। কোটচাঁদপুরের সাব্বির শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচিত হন।

সাভারে বিসিক শিল্প নগরী ট্যানারিতে ১০ দফা দাবি আদায়ের লক্ষে দুই ঘন্টা কাজ বন্ধ রেখে বিক্ষোভ মিছিল

 

মোঃ গোলাম মোস্তফা,(সাভার)
সাভারে বিসিক শিল্প নগরী ট্যানারিতে ১০ দফা দাবি আদায়ের লক্ষে দুই ঘন্টা কাজ বন্ধ রেখে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে শ্রমিকরা।বৃহস্পতিবার সকাল ১০ থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত সাভারের হেমায়েতপুরের হরিণধরা এলাকায় ট্যানারিতে ট্যানারি ওয়ার্কাস ইউনিয়নের ব্যাপারে এ বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ করে শ্রমিকরা। বিক্ষোভ মিছিলটি বে ট্যানারির সামনে থেকে শুরু হয়ে আমতলা গিয়ে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিলে এসময় চালু হওয়া ৫৫ টি ট্যানারির কয়েক হাজার শ্রমিক অংশ গ্রহন করেন। এছাড়া ট্যানারি শ্রমিকদের পাশাপাশি সাভারের বিভিন্ন গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের শ্রমিকরাও অংশ গ্রহন করেন। বিক্ষোভ মিছিল শেষে এক সমাবেশে ট্যানারি ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বলেন আগামী কোরবানী ঈদের আগে আমাদের ১০ দফা দাবি মানতে হবে,দাবি না মানলে ঈদের পরে কঠোর কর্মসুচী দেওয়া হবে। এসময় তিনি শ্রমিকদের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি না খেলতে ট্যানারি মালিকদের আহবান জানান। এসময় তিনি আরও বলেন চামড়া শিল্প নগরীতে শ্রমিকদের আবাসন,হাসপাতাল,স্কুল ক্যান্টিন ও ইউনিয়ন (সিবিও) কার্যালয় জরুরী সকল সুযোগ সুবিধা নিশিচত করা এবং শ্রমিকদের অন্তবর্তী ভাতা প্রদান,চামড়া শিল্প নগরীর সকল রাস্তা ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা উন্নয়ন ও রাস্তায় পর্যাপ্ত লাইটের ব্যবস্থা করতে হবে । অবিলম্বে তিনি দাবি গুলো ট্যানারি মালিকদের বাস্তবায়ন করার দাবি জানান।
বিক্ষোভ মিছিলে এসময় ট্যানারি ওয়ার্কাস ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেকসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ছিলো।

ঝিনাইদহে শিক্ষকের স্কেলের আঘাতে চোঁখ হারালো শিক্ষার্থী

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার দহকোলা গ্রামের মনতেজার রহমান মিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মুরাদ হোসেনের স্কেলের আঘাতে এক চোখ হারিয়েছে ওই বিদ্যালয়ের ৬ষ্ট শ্রেণীর ছাত্রী মারিয়াতুছ ফোয়ার। ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শিক্ষার্থী ফোয়ারার বাবা শরিফুল ইসলাম অভিযোগ করেন, গত ১২ আগস্ট সকাল ১০ টার দিকে ফোয়ারার স্কেলে থাকা কালি ওই শিক্ষকের হাতে লেগে যায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই স্কেল দিয়ে ফোয়ারার চোখে আঘাত করেন। চোখে রক্তক্ষরণ হলে সেখান থেকে তাকে অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার চোখের অবস্থা খারাপ হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা বলেন, তার একটি চোখ নষ্ট হয়ে গেছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতে পাঠাতে হবে। বর্তমানে ওই শিক্ষার্থী নিজ বাড়িতে আছে। আর্থিক অবস্থা খারাপ হওয়ায় তাকে ভারতে নিয়ে যেতে পারছেন না।এ ঘটনায় মঙ্গলবার ফোয়ারার বাবা বাদি হয়ে শৈলকুপা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।শৈলকুপা থানার ওসি আলমগীর হোসেন বলেন, থানায় সংক্রান্ত মামলা হওয়ার পর আজ অভিযুক্ত শিক্ষককে পুলিশ গ্রেফতার করা হয়েছে

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা উত্তরা কোরবানীর পশুর হাঁটের ইজারাদার শফিকুল ইসলাম তুরাগের চন্ডালভোগ গ্রামবাসির পথচলাচলের রাস্তা জোরপূর্বক বন্ধ করে দিয়েছে

এস,এম মনির হোসেন জীবন : রাজধানীর উত্তরা ও তুরাগের ১৫ নম্বর সেক্টরে সরকারী ভাবে কোরবানীর পশুর হাঁটের ইজারা নিয়ে তুরাগের হরিরামপুর ইউনিয়ন পরিষদ ৫ নম্বর ওয়ার্ড চন্ডাল ভোগ গ্রামবাসির পথচলাচলের রাস্তা জোরপূর্বক ভাবে বন্ধ করে দিয়েছে উত্তরা কোরবারী পশুর হাঁেটের ইজারাদার মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স এর স্বত্বাধীকারী এবং বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম।
এনিয়ে গত বৃহস্পতিবার ও গতকাল শুক্রবার দুপুরে চন্ডাল ভোগ গ্রামের বসবাসরত স্থানীয় বাসিন্দাররা একযুগে রাস্তা বন্ধ করার প্রতিবাদ করলে তাদেরকে হাঁটের ইজারাদার ও সরকার দলীয় কতিপয় নেতা এবং তাদের সাঙ্গপাঙ্গ-ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি প্রদর্শন এমনকি নানা ভাবে হুমকী প্রদান করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
ঘটনাটি এলাকাবাসিরা গতকাল শৃুক্রবার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) তাপস কুমার দাস ও তুরাগ থানার ওসি মো: নুরুল মোত্তাকিন সহ উত্তরা র‌্যাব-১কে অবহিত করলে ঘটনাস্থলে তুরাগ থানার এসআই সুমন সহ সঙ্গীয় ফোর্স গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চলতি বছরের সরকার ঘোষিত উত্তরা কোরবারী পশুর হাট বসানোর জন্য প্রায় ৩ কোটি টাকার (অধিক) বিনিময়ে হাঁটের ইজারা পান মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স । এই পশুর হাঁটের স্বত্বাধীকারী হলো বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম। ঘটনার বিবরনে জানা যায়, বুধবার রাতে দক্ষিণখান থানার ওসি (তদন্ত) মনিরুজ্জামান সোনার গাঁও জনপথ সড়কের দক্ষিণ পাশে তুরাগের আরাফাত সুপার মার্কেটের সামনে রাস্তার পাশে পুরাতন মারুফের ভাঙ্গারী টিনের চালের নিচে গ্রাম থেকে প্রায় শতাধিক পশু এই হাঁটে নিয়ে আসে। এরপর ওসি মনিরুজ্জামান মধ্যরাতে নিজের লোক দিয়ে এর নেতৃত্বে চন্ডাল ভোগ পূর্ব পাড়া গ্রামবাসির পথচলাচলের রাস্তা অন্যায় ভাবে জোর পূর্বক দখল করে মানুষের যাতায়াতের রাস্তার উপর বাঁশের খুঁটি ও পলিথিন দিয়ে বন্ধ করে দিয়। তখন ঘটনাটি দেখে স্থানীয় বাসিন্দার ও উত্তরা সেন্ট্রাল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা বাসসের ঢাকা উত্তর প্রতিবেদক (সাংবাদিক) এস,এম মনির হোসেন জীবন, বেসরকারী রেডিও ধ্বনি অপরাধবিষয়ক রিপোর্টার মোস্তাফিজুর রহমান,স্থানীয় বাসিন্দা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান সবুজ, সরকারী কর্মকর্তা আব্দুর রহিম, হারুন অর রশীদ, বালু ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান,দেলোয়ার হোসেন দেলু, ফয়েজ আহমেদ বাইল্লা সহ পথচারীরা এঘটনার প্রতিবাদ করলে তাদেরকে দক্ষিণখান থানার ওসি (তদন্ত) মনিরুজ্জামান ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের সাথে স্থানীয় বাসিন্দারদের মধ্যে বাকবিতন্ত ও হট্রো গোল হয়। রাতে ঘটনাটি দক্ষিনখান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তপন চন্দ্র সাহাকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। খবর পেয়ে ওই দিন রাত দেড়টায় ঘটনাস্থলে ছুঁটে আসেন উত্তরা কোরবারী পশুর হাঁেটের ইজারাদার মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স এর স্বত্বাধীকারী ও বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম, উত্তরা-তুরাগ ট্রাক ও কভারভ্যান মালিক সমিতির সভাপতি মোস্তফা কামাল ও উত্তরখান থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: ওয়াছেক মিয়া। তখন স্থানীয় বাসিন্দাররা মানুষের চলাচলের জন্য ১০ থেকে ১২ ফুট রাস্তাটি বন্ধ না করা এবং রাস্তার উপর কোন পশু না রাখার জন্য অনুরোধ জানান।
গতকাল শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে একই স্থানে জনগনের রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে গরু বসায় দক্ষিণখান থানার ওসি (তদন্ত) মনিরুজ্জামান ও তার সহযোগীরা। তখনও প্রতিবাদ করে এলাকাবাসি ও ভুক্তভোগীরা। পরে খবর পেয়ে সরকার দলীয় নেতা মো: সাদেক আলী,মোস্তফা মাতাব্বর ও নূর হোসেনের নেতৃত্বে তুরাগ থানার এসআই সুমনের উপস্থিতিতে প্রায় অর্ধশতাধিক সহযোগী ঘটনাস্থলে পৌছেন এবং কোন রাস্তা দেওয়া হবেনা বলে হুশিয়ারী দেয়। তখন দলীয় নেতাকর্মীরা প্রতিবাদকারী স্থানীয় বাসিন্দারদেরকে হুমকী দিয়ে বলেন যে, বেশি বাড়াবাড়ি করলে এর পরিনাম ভাল হবেনা। আমরা গরুর হাঁট বসিয়েছি আমরাই সব কিছু নিয়ন্ত্রন করবো।
একটি নির্ভরযোগ্য সুত্রে জানা যায়, বেআইনী ভাবে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে সরকার দলীয় নেতারা রাজউকের কোটি কোটি টাকার জমি জবর দখল করে সেখানে অবৈধ গরুর হাঁট বসিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সেই সাথে উত্তরা কোরবারী পশুর হাঁেটের ইজারাদার মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স এর স্বত্বাধীকারী ও বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ওরফে সোনা শফি ও তার দলের সাঙ্গপাঙ্গরা প্রশাসনের ছত্রছায়ায় চন্ডাল ভোগ গ্রামের বসবাসরত বাসিন্দারদের পথচলাচলের রাস্তা জোরপূর্বক ভাবে বন্ধ করে দিয়ে সেখানে পুলিশের দুইজন (ওসি) গরুর রাখা ও বিক্রির জায়গা করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সুত্রে আর ও জানা যায়, ২০১৭ সালের উত্তরার কোরবানী পশুর হাঁটের নির্ধারিত জায়গা রাজউকের ১৫ নম্বর সেক্টরের পরিত্যক্ত খালি জায়গা ও খোলচত্বর সংলগ্ন জায়গায় বসানোর জন্য ইজারা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তার পর ও উত্তরা কোরবারী পশুর হাঁেটের ইজারাদার মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স এর স্বত্বাধীকারী ও বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম সরকার দলীয় স্থানীয় নেতা কর্মীদেরকে ম্যানের করে বেআইনি ভাবে জোরপূর্বক ভাবে উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টর খালপাড় ব্রিজ থেকে শুরু করে ১৫ নম্বর সেক্টরের প্রবেশ পথ সোনার গাঁওজনপথ সড়কের দক্ষিণপাশে রাজউকের খালি জায়গায় পশুর হাঁট বসিয়েছে।
এবিষয়ে জানতে উত্তরা কোরবারী পশুর হাঁেটের ইজারাদার মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স এর স্বত্বাধীকারী শফিকুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে সে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।
এক প্রশ্নের জবাবে পশুর হাঁটের ইজারারদার শফিকুল ইসলাম জানান, চন্ডাল ভোগ গ্রামের বাসিন্দারদের পথচলাচলের রাস্তা বন্ধ করে সেখানে গরু বসতে জায়গা দিয়েছি। আমি যেহেতু হাঁটের ইজারা নিয়েছে সে কারনে সেখানে গরু রেখেছি। এতে কারও কিছু বলা কিংবা করার নেই।
এবিষয়ে জানতে গতকাল শৃুক্রবার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগের (সিনিয়র সহকারী কমিশনার) এসি তাপস কুমার দাস এর সাথে যোগাযোগ করা হলে সে জানান, ঘটনাটি আমি শুনেছি। পরবর্তীতে আমি তুরাগ থানার ওসিকে বলে এবিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবো।
এবিষয়ে রাজধানীর উত্তরা ও তুরাগের হরিরামপুর ইউনিয়ন পরিষদ ৫ নম্বর ওয়ার্ড চন্ডাল ভোগ গ্রামবাসি সহ সর্বস্তরের মানুষ বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কণ্যা দেশরতœ শেখ হাসিনা, মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল,মহাপুলিশ পরিদর্শক ( আইজিপি) একেএম শহীদুল হক, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার ( ডিসি) জয়দেব কুমার ভদ্র সহ সরকারের সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিভাগের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা
উত্তরা কোরবানীর পশুর হাঁটের ইজারাদার শফিকুল ইসলাম তুরাগের চন্ডালভোগ গ্রামবাসির পথচলাচলের রাস্তা জোরপূর্বক বন্ধ করে দিয়েছে
এস,এম মনির হোসেন জীবন : রাজধানীর উত্তরা ও তুরাগের ১৫ নম্বর সেক্টরে সরকারী ভাবে কোরবানীর পশুর হাঁটের ইজারা নিয়ে তুরাগের হরিরামপুর ইউনিয়ন পরিষদ ৫ নম্বর ওয়ার্ড চন্ডাল ভোগ গ্রামবাসির পথচলাচলের রাস্তা জোরপূর্বক ভাবে বন্ধ করে দিয়েছে উত্তরা কোরবারী পশুর হাঁেটের ইজারাদার মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স এর স্বত্বাধীকারী এবং বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম।
এনিয়ে গত বৃহস্পতিবার ও গতকাল শুক্রবার দুপুরে চন্ডাল ভোগ গ্রামের বসবাসরত স্থানীয় বাসিন্দাররা একযুগে রাস্তা বন্ধ করার প্রতিবাদ করলে তাদেরকে হাঁটের ইজারাদার ও সরকার দলীয় কতিপয় নেতা এবং তাদের সাঙ্গপাঙ্গ-ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি প্রদর্শন এমনকি নানা ভাবে হুমকী প্রদান করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
ঘটনাটি এলাকাবাসিরা গতকাল শৃুক্রবার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) তাপস কুমার দাস ও তুরাগ থানার ওসি মো: নুরুল মোত্তাকিন সহ উত্তরা র‌্যাব-১কে অবহিত করলে ঘটনাস্থলে তুরাগ থানার এসআই সুমন সহ সঙ্গীয় ফোর্স গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চলতি বছরের সরকার ঘোষিত উত্তরা কোরবারী পশুর হাট বসানোর জন্য প্রায় ৩ কোটি টাকার (অধিক) বিনিময়ে হাঁটের ইজারা পান মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স । এই পশুর হাঁটের স্বত্বাধীকারী হলো বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম। ঘটনার বিবরনে জানা যায়, বুধবার রাতে দক্ষিণখান থানার ওসি (তদন্ত) মনিরুজ্জামান সোনার গাঁও জনপথ সড়কের দক্ষিণ পাশে তুরাগের আরাফাত সুপার মার্কেটের সামনে রাস্তার পাশে পুরাতন মারুফের ভাঙ্গারী টিনের চালের নিচে গ্রাম থেকে প্রায় শতাধিক পশু এই হাঁটে নিয়ে আসে। এরপর ওসি মনিরুজ্জামান মধ্যরাতে নিজের লোক দিয়ে এর নেতৃত্বে চন্ডাল ভোগ পূর্ব পাড়া গ্রামবাসির পথচলাচলের রাস্তা অন্যায় ভাবে জোর পূর্বক দখল করে মানুষের যাতায়াতের রাস্তার উপর বাঁশের খুঁটি ও পলিথিন দিয়ে বন্ধ করে দিয়। তখন ঘটনাটি দেখে স্থানীয় বাসিন্দার ও উত্তরা সেন্ট্রাল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা বাসসের ঢাকা উত্তর প্রতিবেদক (সাংবাদিক) এস,এম মনির হোসেন জীবন, বেসরকারী রেডিও ধ্বনি অপরাধবিষয়ক রিপোর্টার মোস্তাফিজুর রহমান,স্থানীয় বাসিন্দা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান সবুজ, সরকারী কর্মকর্তা আব্দুর রহিম, হারুন অর রশীদ, বালু ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান,দেলোয়ার হোসেন দেলু, ফয়েজ আহমেদ বাইল্লা সহ পথচারীরা এঘটনার প্রতিবাদ করলে তাদেরকে দক্ষিণখান থানার ওসি (তদন্ত) মনিরুজ্জামান ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের সাথে স্থানীয় বাসিন্দারদের মধ্যে বাকবিতন্ত ও হট্রো গোল হয়। রাতে ঘটনাটি দক্ষিনখান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তপন চন্দ্র সাহাকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। খবর পেয়ে ওই দিন রাত দেড়টায় ঘটনাস্থলে ছুঁটে আসেন উত্তরা কোরবারী পশুর হাঁেটের ইজারাদার মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স এর স্বত্বাধীকারী ও বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম, উত্তরা-তুরাগ ট্রাক ও কভারভ্যান মালিক সমিতির সভাপতি মোস্তফা কামাল ও উত্তরখান থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: ওয়াছেক মিয়া। তখন স্থানীয় বাসিন্দাররা মানুষের চলাচলের জন্য ১০ থেকে ১২ ফুট রাস্তাটি বন্ধ না করা এবং রাস্তার উপর কোন পশু না রাখার জন্য অনুরোধ জানান।
গতকাল শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে একই স্থানে জনগনের রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে গরু বসায় দক্ষিণখান থানার ওসি (তদন্ত) মনিরুজ্জামান ও তার সহযোগীরা। তখনও প্রতিবাদ করে এলাকাবাসি ও ভুক্তভোগীরা। পরে খবর পেয়ে সরকার দলীয় নেতা মো: সাদেক আলী,মোস্তফা মাতাব্বর ও নূর হোসেনের নেতৃত্বে তুরাগ থানার এসআই সুমনের উপস্থিতিতে প্রায় অর্ধশতাধিক সহযোগী ঘটনাস্থলে পৌছেন এবং কোন রাস্তা দেওয়া হবেনা বলে হুশিয়ারী দেয়। তখন দলীয় নেতাকর্মীরা প্রতিবাদকারী স্থানীয় বাসিন্দারদেরকে হুমকী দিয়ে বলেন যে, বেশি বাড়াবাড়ি করলে এর পরিনাম ভাল হবেনা। আমরা গরুর হাঁট বসিয়েছি আমরাই সব কিছু নিয়ন্ত্রন করবো।
একটি নির্ভরযোগ্য সুত্রে জানা যায়, বেআইনী ভাবে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে সরকার দলীয় নেতারা রাজউকের কোটি কোটি টাকার জমি জবর দখল করে সেখানে অবৈধ গরুর হাঁট বসিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সেই সাথে উত্তরা কোরবারী পশুর হাঁেটের ইজারাদার মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স এর স্বত্বাধীকারী ও বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ওরফে সোনা শফি ও তার দলের সাঙ্গপাঙ্গরা প্রশাসনের ছত্রছায়ায় চন্ডাল ভোগ গ্রামের বসবাসরত বাসিন্দারদের পথচলাচলের রাস্তা জোরপূর্বক ভাবে বন্ধ করে দিয়ে সেখানে পুলিশের দুইজন (ওসি) গরুর রাখা ও বিক্রির জায়গা করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সুত্রে আর ও জানা যায়, ২০১৭ সালের উত্তরার কোরবানী পশুর হাঁটের নির্ধারিত জায়গা রাজউকের ১৫ নম্বর সেক্টরের পরিত্যক্ত খালি জায়গা ও খোলচত্বর সংলগ্ন জায়গায় বসানোর জন্য ইজারা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তার পর ও উত্তরা কোরবারী পশুর হাঁেটের ইজারাদার মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স এর স্বত্বাধীকারী ও বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম সরকার দলীয় স্থানীয় নেতা কর্মীদেরকে ম্যানের করে বেআইনি ভাবে জোরপূর্বক ভাবে উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টর খালপাড় ব্রিজ থেকে শুরু করে ১৫ নম্বর সেক্টরের প্রবেশ পথ সোনার গাঁওজনপথ সড়কের দক্ষিণপাশে রাজউকের খালি জায়গায় পশুর হাঁট বসিয়েছে।
এবিষয়ে জানতে উত্তরা কোরবারী পশুর হাঁেটের ইজারাদার মেসার্স শফিক এ্যান্ড ব্রাদার্স এর স্বত্বাধীকারী শফিকুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে সে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।
এক প্রশ্নের জবাবে পশুর হাঁটের ইজারারদার শফিকুল ইসলাম জানান, চন্ডাল ভোগ গ্রামের বাসিন্দারদের পথচলাচলের রাস্তা বন্ধ করে সেখানে গরু বসতে জায়গা দিয়েছি। আমি যেহেতু হাঁটের ইজারা নিয়েছে সে কারনে সেখানে গরু রেখেছি। এতে কারও কিছু বলা কিংবা করার নেই।
এবিষয়ে জানতে গতকাল শৃুক্রবার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগের (সিনিয়র সহকারী কমিশনার) এসি তাপস কুমার দাস এর সাথে যোগাযোগ করা হলে সে জানান, ঘটনাটি আমি শুনেছি। পরবর্তীতে আমি তুরাগ থানার ওসিকে বলে এবিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবো।
এবিষয়ে রাজধানীর উত্তরা ও তুরাগের হরিরামপুর ইউনিয়ন পরিষদ ৫ নম্বর ওয়ার্ড চন্ডাল ভোগ গ্রামবাসি সহ সর্বস্তরের মানুষ বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কণ্যা দেশরতœ শেখ হাসিনা, মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল,মহাপুলিশ পরিদর্শক ( আইজিপি) একেএম শহীদুল হক, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার ( ডিসি) জয়দেব কুমার ভদ্র সহ সরকারের সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিভাগের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আজ প্রধান বিচারপতির ভূমিকা অত্যন্ত দু:খ জনক —শিল্প মন্ত্রী আমির হোসেন আমু 

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার উদ্যোগে আজ ২৩ আগষ্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪২ তম শাহাদাত বার্ষিকী ও ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সকাল ১০.০ টায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে গন-প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিল্প মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য জনাব আমির হোসেন আমু বলেন মন্ত্রী বলেন, বিশে^র যে কয়জন রাষ্ট্র নায়ক নিজনিজ দেশের উন্নয়ণে শীর্ষে রয়েছেন তার মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবস্থান ১০ম স্থানে। আজ যারা নির্বাচনে অংশ গ্রহণ না করে অবৈধ সংসদ বলছেন ,সেদিন তারা কি করে ছিলেন জাতির সামনে তা পরিস্কার। সেদিন নির্বাচনের প্রতিটি বুথকেন্দ্রের স্কুলে স্কুলে আগুন দিয়ে স্কুল ঘর পুড়িয়েছেন। স্বাধীনতা বিরোধী বিএনপি জামায়াতচক্র অবৈধ পন্থায় ক্ষমতায় আসার চেষ্টাকে জাতি প্রতিহত করে আওয়ামী লীগকে  দেশ সেবার দায়িত্ব দিয়েছে। আমির হোসেন আমু আরও বলেন,আজ প্রধান বিচারপতির ভূমিকা অত্যন্ত দু:খ জনক । কিন্ত প্রধান বিচারপতিকে স্বরণ করিয়ে দিতে চাই  বঙ্গবন্ধুর সেই ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের কথা, তিনি বলেছিলেন সুপ্রিমকোর্ট হাইকোর্ট,ব্যাংক , অফিস আদালত বন্ধ থাকবে। রাস্তায় কোন গাড়ীর চাকা চলবেনা,মিলকারখানা বন্ধ থাকবে ্ সেই সব দিনের কথা কি প্রধান বিচারপতি ভুলেগেছেন ?  ভুলেগেছেন পাকিস্তান শাসকের বিচারপতিও সেদিন সাহস দেখায়নি সুপ্রিমকোর্ট বসাতে। আর আপনি ষোড়স সংশোধনী নিয়ে যে খেলা খেলছেন প্রধান বিচারপতি এর মূল্য আপনাকেই দিতে হবে। তাই আপনি পাকিস্তানের উদাহারুণ টানবেন না, এটা বাংলাদেশ এদেশ মুসলিম,হিন্দু, খ্যীষ্টার্ণ বৌদ্ধের রক্তের বিনিময়ে স্বাধীন হয়েছে। তাই পাকিস্তানের আইন বালিশের নিচে রেখেদিন। ষোড়শ সংশোধনী আইনের জন্য দেশে যদি কোন পরিস্থিতি তৈরী হয় এর দায়দায়িত্ব আপনাকেই নিতে হবে।  তিনি বলেন, ১৫ই আগষ্ট জাতি জাতির পিতাকে স্বপরিবারে হারিয়েছে,যুবলীগের সভাপতি ফজলুল হক মনিসহ আরজুমনিকে হারিয়েছে। স্বাধীনতা বিরোধীরা বাংলাদেশকে পাকিস্তান করার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিদেশে চাকুরী দিয়ে পূর্ণবাসনই করেনি । যাতে হত্যার বিচার না হয় তার জন্য বিশেষ অধ্যাদেশ ইনডিমিনিটি বিল পাশ করেছিলো ।  বিচারপতি আপনি ভুলে যাবেন বঙ্গবন্ধুর খুনিদেরসহ যুদ্ধাপরাধীদের ও বিচার হয়েছে এবং আগামীতেও হবে
 যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন রক্ত¯œাত ১৫ই আগষ্ট ইতিহাসের কলঙ্কিত অধ্যায় । আর সেই অধ্যায় এখনও অব্যাহত আছে। প্রধান বিচারপতির উদ্দেশ্যে তিনি বলেন,ষোড়স সংশোধনী  বিলকে আজ আপননি বির্তকিত করে তুলেছেন ,জাতীয় সংসদ সদস্যদের নিয়েও আপনি মন্তব্য  করিতে কুন্ঠ্যাবোধ করেননি। আপনি বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নতুন প্রজন্ম জানতে না পারে আপনি সেই পথে হাটছেন কুচক্রী একটি মহলকে সঙ্গে করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্টায়  জাতির ভাগ্য উন্নয়ণে  কাজ করে যাচ্ছেন। প্রধান বিচারপতিকে যুবলীগ চেয়ারম্যান আরো বলেন পদত্যাগ করুন না হলে লাখো যুবকের লাগাতার মানববন্ধন।২০০৮ সালে এই ক্ষমতায় আসার পর থেকে বিএনপি-জামাত ৫ বছরের সকল দুষ্কর্ম অপকর্ম, ঘাতকদের যাতে বিচার না হয় সেই লক্ষ্যে আওয়ামী লীগ এর গোটা শাসনামল জুড়ে সরকারকে অস্থির করে তুলতে অব্যাহত হরতাল, মানুষ পোড়ানো, পুলিশের উপর হামলা, বায়তুল মোকারমে আগুন, কোরআন শরীফ পর্যন্ত পুড়িয়ে দেশকে দেশের মানুষজনকে অস্থির করে তুলেছে। বছর ঘুরে আগস্ট আসলেই মনটা আতংকিত হয়। ১৫ আগস্ট, ১৭ আগস্ট, ২১ শে আগস্ট আবার ২০১৭ সালের ১৫ আগস্ট, ষোড়শ সংশোধনীর রায় একই সুত্রে গাথা।
যুবলীগ ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার সভাপতি মাইনুল হোসেন খান নিখিল এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক তাসভীরুল হক অনুর যৌথ পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথি যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ হারুনুর রশীদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন সভাপতি সাবান মাহমুদ, যুবলীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুস সাত্তার মাসুদ, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য মুহা: বদিউল আলম, আসাদুল হক আসাদ, কাজী আনিসুর রহমান, মিজানুল ইসলাম মিজু, শ্যামল কুমার রায়, যুবলীগ দক্ষিন সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী স¤্রাট, যুবলীগ উত্তর সহ সভাপতি কাজী জহিরুল ইসলাম মানিক, মো: জাফর ইকবাল, মো: জলিলুর রহমান, মো: মহিবুর রহমান, সাব্বির আলম লিটু, ইঞ্জি: জাহান এম এ রহমান, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য হারুনুর রশিদ, শাহাদাত হোসেন সেলিম, এএইচএম কামরুজ্জামান, দক্ষিন সহ সভাপতি মোরসালিন আহম্মেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মাকসুদুর রহমান প্রমুখ

সাভার শোক সংবাদ

মোঃ গোলাম মোস্তফা,(সাভার)
সাভার ও ধামরাইয়ের বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আদম আলী(৬৮)আর নেই।তিনি বুধবার রাত আনুমানিক ০১ টায় হার্ড এ্যাটাকে আক্রান্ত হয়ে এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শেষ নিঃস্বাস ত্যাগ করেন । (ইন্নালিল্লাহি———–রাজিউন)।মৃত্যুকালে এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন।
সে ১৯৭১ সালে ঢাকাজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ধামরাইয়ের সাবেক সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা বেনজির আহমেদের সাথে ঢাকাজেলার সাভার ও ধামরাইয়ের বিভিন্ন এলাকায় পাক সেনাদের সাথে যুদ্ধ করেছেন।
তার মৃত্যুতে ঢাকা-১৯ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ ডা. এনামুর রহমান ও ঢাকা-২০ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ এম এ মালেক গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।
আজ সকালে মরহুমের দেশের বাড়ী ধামরাই উপজেলার রাজনগর স্কুল মঠে যানাজা শেষে সাভার উপজেলার নামাবাজার বাশপট্রিতে দ্বিতীয় যানাজা অনুষ্ঠিত হবে। আজ বাদ আছড় বাড্ডা-ভাটপাড়া কবরস্থানে তার লাশ দাফন করা হবে বলে জানিয়েছেন মরহুমের একমাত্র ছেলে মোঃ নুরুল ইসলাম।


সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: এ্যাডভোকেট শেখ মোঃ আব্দুল্লাহ
সম্পাদক-প্রকাশক : শেখ মোঃ তৈয়াবুর রহমান॥

যুগ্ম সম্পাদক: এস এম শাহিদুল আলম॥ সহযোগী সম্পাদক: শেখ মোঃ আরিফ আল আরাফাত
সহ-সম্পাদক: (প্রশাসন) হাজী হাবিবুর রহমান শাহেদ: সহ সম্পাদক: আজমাল মাহমুদ
সম্পাদক কর্তৃক বাড়ী বাড়ী নং- ৫৩/২, ৪র্থ তলা, রাজ-নারায়ন-ধর রোড, কিল্লার মোড় বাজার, লালবাগ, ঢাকা-১২১১
ফোন: ০১৯১৮-২০১৬২৬, ফোন: ০১৭১৫-৯৩৩১৬৮
ই-মেইল- notunvor.news@gmail.com
Designed By Hostlightbd.com
| Cyberboss.org