,

ThemesBazar.Com

মুক্তামণির মতো বিরল রোগে আক্রান্ত আরেক শিশুর সন্ধান||দৈনিক নতুনভোর

মুক্তামণির মতো বিরল রোগে আক্রান্ত আরেক শিশুর সন্ধান পাওয়া গেছে। রাজশাহীর পবা উপজেলার বড়গাছি ইউনিয়নের টেগাটাপাড়া গ্রামের স্বর্ণালীর ডান হাতেও মুক্তামণির মতো রোগ দেখা দিয়েছে। জন্মের সময় ছোট কালো দাগ থেকে এখন পুরো হাতেই এ রোগ ছড়িয়ে পড়েছে। এ নিয়ে চরম বেকায়দায় ও মানসিকভাবে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন স্বর্ণালীর বাবা-মা।

স্বর্ণালীর বয়স এখন ১২ বছর। স্থানীয় নোনামাটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী সে। তার বাবা আবদুল মান্নান দুর্গাপুরের দাওকান্দি কলেজের পিওন ও মা রুমা বেগম গৃহিণী। তাদের ঘরে দ্বাদশ শ্রেণি পড়ুয়া একজন ছেলে সন্তানও রয়েছে। স্বর্ণালীর ডান হাতে জন্মের সময় থাকা কালো দাগের মাধ্যমে এ রোগের উৎপত্তি। বিরল এ রোগের কোনো চিকিৎসা নেই ভেবে এতোদিন ডাক্তার দেখাননি বাবা-মা। তবে পত্রপত্রিকায় মুক্তামণির রোগ ও চিকিৎসা নিয়ে খবর প্রকাশের পর তা দেখে মনে সাহস জেগেছে তাদের। এ রোগ ভালো হয়ে যেতে পারে এমন আশায় তারা ছুটে যান চিকিৎসকের কাছে। তবে অপারেশন বাবদ যে টাকার হিসেব দেয়া হয়েছে তাতে কোনোভাবেই চিকিৎসা করানো সম্ভব নয় ভেবে আবার পেছনে হাটেন বাবা-মা।

স্বর্ণালীর মা রুমা বেগম ও বাবা আব্দুল মান্নান জানান, মুক্তামণির হাতে যে বিরল রোগ, তার মেয়ের হাতেও একই রোগ বাসা বেধেছে। ক্রমেই হাত মোটা ও ভারি হয়ে যাচ্ছে। হাতে ছোট গুটি ও মাংসপিণ্ডের মতো বেড়ে উঠছে ক্রমেই। ডান হাতের পুরোটা এখন ছড়িয়ে পড়েছে। নিচের অংশে ঝুলছে চামড়া। মাঝে পেকে পুজ বের হয়। তখন ব্যথায় কাতর থাকে স্বর্ণালী।

স্বর্ণালীর মা রুমা জানান, মেয়ের বয়স যখন চার বছর ছিল তখন রাজশাহী মেডিকেল কলেজের চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মোয়াজ্জেম হোসেনকে দেখানো হয়েছিল। সে সময় চিকিৎসক একটি মলম দিয়েছিলেন। সেটি লাগানো হলেও রোগ কমার কোনো লক্ষণ তারা খুঁজে পাননি। বরং তা ক্রমেই বাড়তে থাকে। এরপর অজ্ঞাত ও বিরল রোগ জেনে তারা আস্থা হারিয়ে ফেলেন। আর চিকিৎসক দেখাননি। এরপর পত্রিকা ও টেলিভিশনে মুক্তামণির খবরের পর তারা মিলিয়ে দেখেন মুক্তামণির মতোই স্বর্ণালীর হাতে রোগ বাসা বেধেছে। এরপর আবার আশা নিয়ে ছুটে যান আরেক বিশষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে। এবার তারা রাজশাহীর ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক আফরোজা নাজনীনকে দেখান।

তিনিও স্বর্ণালীর হাত দেখে বিরল রোগ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন। অবশ্য এ ডাক্তার পরীক্ষা নিরীক্ষার পর অপারেশন করার পরামর্শ দিয়েছেন। তবে টাকার বাজেটের কাছে পরাস্ত হয়েছেন বাবা-মা। এখন মেয়েকে নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় দিন কাটছে তাদের। ভালো চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়ার সামর্থও নেই।

স্বর্ণালীর মা রুমা বেগম জানান, মেয়ে যত বড় হচ্ছে তত বাড়ছে রোগের পরিধি। এ নিয়ে তারা চিন্তায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। তবে তিনি আশা প্রকাশ করে জানান, মুক্তামণির চিকিৎসা যেভাবে হয়েছে, তার মেয়ে স্বর্ণালীর চিকিৎসাও সেভাবে হবে। প্রয়োজন শুধু সহায়তা। এজন্য তিনি সরকারের পাশাপাশি বিত্তবানদের এগিয়ে আসার অনুরোধ করেছেন।

স্বর্ণালী জানায়, স্কুলে গেলে তারপাশে অন্যরা বসতে চায় না। তাকে দেখে সহপাঠিরা হাসাহাসি করে। এজন্য প্রায়ই তার স্কুলে যাওয়া হয় না। শিক্ষকরা তাকে ভালোবাসলেও সহপাঠিদের এমন ব্যবহার তার ভালোলাগে না। তবে লেখা-পড়া করার প্রচণ্ড ইচ্ছে আছে তার।

স্বর্ণালীর বাবা আব্দুল মান্নান জানান, মেয়ের হাতের রোগ নিয়ে তারা চরম বিপাকে রয়েছেন। তিনি নিজে কলেজের পিওন পদে চাকরি করেন। এ থেকে সংসার চালানোর পাশাপাশি এক ছেলের পড়ালেখার খরচ যোগান দিতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে। এ অবস্থায় মেয়ের চিকিৎসার খরচ যোগানো কোনোভাবেই তারপক্ষে সম্ভব নয়। এ কারণে তার মেয়ের চিকিৎসার জন্য সরকারের পাশাপাশি সমাজের বিত্তবানদের কাছে সহায়তা চেয়েছেন তিনি।

ThemesBazar.Com

     More News Of This Category