ফুলবাড়ীয়ায় একই মাঠে ৩১০টি পশু কোরবানী

ফুলবাড়িয়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি ঃ ময়মনসিংহ জেলার ফুলবাড়ীয়া উপজেলার পুটিজানা ইউনিয়নে বৈইলাজান গ্রামে একইমাঠে ৩১০টি পশু কোরবানীর এবং ১৫০০টি খানায় পঞ্চায়াতরে বন্টন দেওয়া হয়েছে বলে জানা যায়।
সরজমিনেগিয়ে জানা যায়, বৈলাজান গ্রামের এ মাঠে প্রায় ২০০ বছর র্পূবে থেকে গ্রামবাসী একত্রে কোরবানী করে আসছে । এ গ্রামে পাচটি মসজদি সমাজ থাকলেও কোরবানীর মাঠ একটি । কোরবানী ঈদ আসলেই এ গ্রামে শুরু হয় এক অন্য রকম উৎসব । গরীব ধনী সকলরে মাঝে সৃষ্টি হয় এক ভ্রাতৃতরে বন্ধন । ভিন্ন মাঠে ঈদের নামাজ আদায় করলেও কোরবানীর পশু নিয়ে চলে আসে কোরবানীর মাঠে এবং কোরবানীর পশু জবাই করার পর ব্যস্ত হয়ে পরে নিজ নিজ পশুর মাংস তৈরীর কাজে । কোরবানীকৃত পশুর মাংস তিন ভাগ করে এক ভাগ মাংস যেখানে জমা দিতে হয় তাকে বলে হয় পঞ্চায়তে । পঞ্চায়েতের লোকজন তা গ্রামের ১৫০০টি খানায় সমান হারে বন্টন করে প্রতি ঘরে ঘরে পৌছে দেওয়ার ব্যবস্থা করে থাকে । ১১১ বছর বয়স্ক হাজী আমজাদ হোসনে বলেন, আমি ছোট থেকেই দেখে আসছি এ কোরবানীর মাঠ , আমার দাদারাও এ মাঠে কোরবানী করতো , তখন এত কোরবানী হতো না । সাংবাদিক হাফিজুল ইসলাম স্বপন বলেন, আমরা যারা এলাকার বাহিরে থাকি তারা সকলইে এই দিনটার জন্য অপেক্ষায় থাকি এবং অন্যকে আনন্দভরে এই দিনটি উপভোগ করি আমাদের মত এত বড় কোরবানীর মাঠ দেশে আরো কোথায় আছে কিনা আমার জানা নেই । পঞ্চায়েতের দায়িত্বে থাকা হারুন অর রশদি দুলাল ও নুরুল ইসলাম বলেন ,গত বছররে চেয়ে এ বছর কোরবানী বেশী হয়েেছ । ১২৫টি গরু ও ১৮৫টি খাসী, এ মাঠের রয়েছে নানা সমস্যা আবজনা পরিস্কারের তেমন কোন ব্যবস্থা নেই, পশুর রক্ত পরিস্কারের জন্য দরকার একটি টিউবওয়েল । র্বষা মৌসুমে পঞ্চায়তেরে মাংস বন্টন করতে কষ্ট হয় এর জন্য একটি ঘর দরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *