হত্যা মামলায় ওসির ১০ বছরের জেল!

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার জয়নাল আবেদীন কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ওয়াহিদ্দুজামান শিপলু হত্যা মামলায় তাহিরপুর থানার তৎকালীন ওসি শরিফ উদ্দিনকে ১০ বছরের কারাদণ্ড ও দুই হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো তিন বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।মামলার অন্যতম আসামি তাহিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান কামরুল এবং উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি মেহেদী হাসান উজ্জ্বলসহ সাতজনকে খালাস দিয়েছেন আদালত। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রণয় কুমার দাশ এ মামলার রায় দেন।উল্লেখ্য, গত ২৭ আগস্ট মামলার রায়পূর্ব শুনানিতে আসামিরা উপস্থিত হলে আদালত সবাইকে জেল হাজতে পাঠান।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০০২ সালের ২০ মার্চ  তাহিরপুর উপজেলার ভাটি তাহিরপুর গ্রামের বাসিন্দা ও বাদাঘাট জয়নাল আবেদীন কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি ওয়াহিদ্দুজামান শিপলু নিজ বাড়িতে রাতের আধারে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন। ছাত্রলীগের ওই নেতার মৃত্যুর তিন দিন পর ২৩ মার্চ তার মা আমিরুন নেছা সুনামগঞ্জ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় তাহিরপুর থানার তৎকালীন ওসি মো. শরিফুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মো. কামরুজ্জামান কামরুল, উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান উজ্জ্বল, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জুনাব আলী, বিএনপিকর্মী শাহীন মিয়া, শাহজান মিয়া, তাহিরপুর থানার সাবেক এসআই রফিকুল ইসলামকে আসামি করা হয়। আজ বৃহস্পতিবার এ মামলার রায়ে তাহিরপুর থানার সাবেক ওসি শরিফুল ইসলাম ছাড়া অন্য সাত আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

২০০২ সালে আওয়ামী লীগের সঙ্গে বিএনপির তৎকালীন রাজনৈতিক বিরোধের জের ধরে তাহিরপুর থানার ওসি শরিফ উদ্দিন ও থানার এসআই  রফিকুল ইসলামের সহযোগিতায় ছাত্রলীগ নেতাকে রাতের আঁধারে গুলি করে হত্যা করা হয় বলে মামলার অভিযোগপত্রে নিহতের মা অভিযোগ করেন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেন। বিচার বিভাগীয় তদন্ত শেষে ওসি ও এসআইসহ সাতজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট প্রদান করা হয়।আদালতে দাখিলকৃত চাজশিটে ওসি ও এসআই’র সম্পৃক্ততা থাকার কারণে ওসি শরিফ উদ্দিন ও এসআই রফিকুল ইসলামকে চাকরি থেকে বরখাস্ত  করা হয়। দীর্ঘ যুক্তিতর্ক শেষে আদালত আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনার ১৫ বছর পর আলোচিত এ মামলার রায় দেন।রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী সুনামগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর কবির রুমেন বলেন,”ঘটনায় জড়িত থাকার বিষয়টি প্রমাণিত হওয়ায় তাহিরপুর থানার ওসিকে আদালত ১০ বছরের কারাদণ্ড  দিয়েছেন। কিন্তু অন্য আসামিরা অপরাধী হয়েও খালাস পাওয়ায় আমরা ক্ষুব্ধ। এই রায়ের বিরুদ্ধে আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করব। “

আসামিপক্ষের আইনজীবী মো. আব্দুল হক বলেন, “আমাদের আসামিদের রাজনৈতিক এ মামলা দিয়ে হয়রানি করা হয়েছে। অবশেষে আদালত আমাদের আসামিদের বেকসুর খালাস দিয়েছেন। আমরা আদালতের রায়ে সন্তুষ্ট। “

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: এ্যাডভোকেট শেখ মোঃ আব্দুল্লাহ
সম্পাদক-প্রকাশক : শেখ মোঃ তৈয়াবুর রহমান॥

যুগ্ম সম্পাদক: এস এম শাহিদুল আলম॥ সহযোগী সম্পাদক: শেখ মোঃ আরিফ আল আরাফাত
সহ-সম্পাদক: (প্রশাসন) হাজী হাবিবুর রহমান শাহেদ: সহ সম্পাদক: আজমাল মাহমুদ
সম্পাদক কর্তৃক বাড়ী বাড়ী নং- ৫৩/২, ৪র্থ তলা, রাজ-নারায়ন-ধর রোড, কিল্লার মোড় বাজার, লালবাগ, ঢাকা-১২১১
ফোন: ০১৯১৮-২০১৬২৬, ফোন: ০১৭১৫-৯৩৩১৬৮
ই-মেইল- notunvor.news@gmail.com
Designed By Hostlightbd.com
| Cyberboss.org