,

ThemesBazar.Com

বড় ভাই বউ নিয়ে আলাদা ! অসুস্থ বাবা-মা বোনের মুখে খাবার দিতে রিকশা চালক শিশু নবীগঞ্জে ১২বছরের শিশুর কাঁধে সংসারের বোঝা

ছনি চৌধুরী,হবিগঞ্জ প্রতিনিধি ॥॥
কাওছার আহমেদ বয়স মাত্র বারো। তার বেড়ে ওঠা অন্য শিশুদের চেয়ে অনেক আলাদা। মনে নেই আনন্দ মুখে নেই হাসি । ভাগ্য তাকে স্কুল থেকেও ফিরিয়ে এনেছে সংসারের ঘানি টানার নরকে। এখন আর বড় কিছু হওয়ার স্বপ্ন দেখে না কাওছার। কেবল অসুস্থ বাবা-মা আর এক বোনকে নিয়ে বেঁচে থাকার চেষ্টা তার। শিশু কাওছার আহমেদ নবীগঞ্জ উপজেলার বাউসা ইউনিয়নের গহরপুর গ্রামের মো. মাস্টর মিয়ার ছেলে। স্থানীয় দৌলতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে কাওছার ঝরে পড়েছে অভাবের নির্মম কষাঘাতে। যে বয়সে বই-খাতা হাতে স্কুলে যাবে, আনন্দে-উৎসবে বেড়ে উঠবে শৈশব, সেই ছোট্ট বয়সে তাকে ধরতে হয়েছে সংসারের কঠিন হাল। মা-বোনদের মুখে ভাত দিতে চলছে তার জীবনসংগ্রাম। এমন সংগ্রামে হয়তো বেঁচে যাবে প্রাণ; কিন্তু বড় কিছু হওয়ার স্বপ্ন পুরণ হবে কি আর? ছোট্ট শরীরটা কি পারবে এতো ধকল সইতে? পারলে কতোদিনইবা পারবে? এক বছর আগে কাওছার যখন পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ছিল তখন তার বিভিন্ন রোগ দেখা দেয় এরপর থেকেই সংসারের হাল ধরতে হয় শিশু বারো বছরের শিশু কাওছারকে। পড়ালেখা ছেড়ে জীবিকার জন্য রিকশা চালাতে শুরু করে দেয় সে। সকালে ঘুম থেকে উঠে জীবিকার সন্ধানে ব্যাটারি চালিত রিকশা নিয়ে বের হতে হয় কাওছারকে। ঘরে ফেরা হয় তার রাতে । সারাদিন রোদে পুড়ে-বৃষ্টিতে ভিজে রিকশা টানতে হয় তাকে। এভাবেই প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে রিকশা চালায়। তবেই ঘরে চাল-ডাল-নুনের যোগান আসে। দু’ বেলা পেটে দুটো ডাল-ভাত পড়ে। অসুস্থ মা-বোন আর নিজের ক্ষুধা মেটে তাতে। বড় ভাই সালাম মিয়া সিএনজি চালান কিন্তু বিয়ে করার পর থেকে খোঁজ-খবর রাখছেন না বাবা-মায়ের বউ নিয়ে থাকছেন অন্যস্থানে । তাই পরিবারের হাল ধরেছে শিশু কাওছার
করুণ স্বরে কাওছার বলে ‘স্বপ্ন ছিলো লেখাপড়া অনেক বড় হবো। কিন্তু আমার স্বপ্ন- স্বপ্নই রয়ে যাবে। এখন আর স্বপ্ন দেখি না। অসুস্থ মা-বোনদের নিয়ে বেঁচে থাকার চেষ্টা করি। প্রতিদিন রিকশা চালিয়ে ৪’থেকে’৫শ টাকা পাই মালিক’কে দিতে হয় ২৫০টাকা বাকিটা দিয়েই চলে সংসারের খরচ ।

 

ThemesBazar.Com

     More News Of This Category